বাঙালির ইতিহাসের বিভীষিকাময় দিন আজ

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৫, ২০১৭

আজ শোকাবহ ১৫ আগস্ট। জাতীয় শোক দিবস। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদতবার্ষিকী।

১৯৭৫ সালের এই দিন বাঙালি জাতির ইতিহাসে ভয়াবহতম কলঙ্কের কালিমা লেপন করেছিল সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামী সদস্য। ঘাতকের নির্মম বুলেটে সেদিন ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের ঐতিহাসিক ভবনে শাহাদতবরণ করেন জাতির জনক।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতির সঙ্গে সেদিন আরো প্রাণ হারান বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, পুত্রবধূ সুলতানা কামাল, রোজী জামাল, ভাই শেখ নাসের, কর্নেল জামিল।

খুনিদের বুলেটে সেদিন প্রাণ হারান বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে মুক্তিযোদ্ধা শেখ ফজলুল হক মণি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, শিশু বাবু, আরিফ রিন্টু খানসহ অনেকে।

ঘাতকরা যখন ৩২ নম্বর বাড়িতে আক্রমণ করে বঙ্গবন্ধুসহ মহান নেতার পরিবারের সব সদস্যকে হত্যা করে তখন দেশে না থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার ছোট বোন শেখ রেহানা।

ঘাতকরা সেদিন বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদেরই কেবল হত্যা করেনি, বাঙালি জাতির আশা-আকাঙ্ক্ষার কেন্দ্রবিন্দুকেও নস্যাৎ করতে চেয়েছিল। ৪২ বছর আগের সেই শোকাবহ দুঃসহ স্মৃতি আজও বয়ে বেড়াচ্ছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর স্বঘোষিত প্রেসিডেন্ট খন্দকার মোশতাক আহমদ বিচারের হাত থেকে খুনিদের রক্ষা করতে কুখ্যাত ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করেন। পরবর্তীতে জিয়াউর রহমান ১৯৭৯ সালে ইনডেমনিটিকে আইন হিসেবে অনুমোদন দেন।

আজ সরকারি ছুটি। জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। সরকারি ও বেসরকারি ভবনে উড়বে কালো পতাকা। গত ৪২ বছরের বেশিরভাগ সময়ই দিনটি ছিল রাষ্ট্রীয়ভাবে চরম অবহেলিত। এর মধ্যে মাত্র ১৪ বছর দিনটি সরকারিভাবে শোক দিবস হিসেবে পালিত হয়েছে।

আওয়ামী লীগ ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে ক্ষমতাসীন হওয়ার পর রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রথম শোক দিবস পালনের সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু ২০০১ সালে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট ক্ষমতায় এসে সে সিদ্ধান্ত বাতিল করে। তবে ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এসে আবার রাষ্ট্রীয়ভাবে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেয়।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ২০১১ সালের জানুয়ারি মাসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারবর্গের হত্যাকারী পাঁচ আত্মস্বীকৃত খুনির ফাঁসির দণ্ডাদেশ কার্যকর হয়। অন্যদিকে, মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত পলাতক ৬ খুনির মধ্যে ৪ জনের অবস্থান এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি আন্তমন্ত্রণালয় টাস্কফোর্স।

বাঙালি জাতি এ দিনটিকে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে থাকে। দিবসটি উপলক্ষে পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করতে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম ও বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন।

পাঠকের মন্তব্য




সম্পাদক: হাসিবুল ইসলাম
বার্তা সমন্বয়ক : তন্ময় তপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো. শামীম
প্রকাশক: তারিকুল ইসলাম

নীলাব ভবন (নিচ তলা), দক্ষিণাঞ্চল গলি,
বিবির পুকুরের পশ্চিম পাড়, বরিশাল- ৮২০০।
ফোন: ০৪৩১-৬৪৮০৭, মোবাইল: ০১৭১১-৫৮৬৯৪০
ই-মেইল: [email protected], [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত বরিশালটাইমস

rss goolge-plus twitter facebook
Developed by: NEXTZEN-IT
টপ
  ফেসবুকে ব্যস্ত ডাক্তার, চিকিৎসা না দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্ছিত!  ‘অপারেশন গর্ডিয়ান নট’ সমাপ্ত, নারীসহ ২ জঙ্গির লাশ ‍উদ্ধার  'অপারেশন গর্ডিয়ান নট' সমাপ্ত, নিহত ২  ধুতি পরেই ম্যারাথনে শিক্ষামন্ত্রী! এরপর...  মোবাইলকে কেন্দ্র করে ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড, ২১ জনের যাবজ্জীবন  বীরত্বে শান্তিকালীন পদক পাচ্ছেন বিমান বাহিনীর ৩৭ কর্মকর্তা  খাদ্য অধিকার আইনের দাবিতে বরিশালে মানববন্ধন  বরিশালে ১১ মৃৎশিল্পীকে সম্মাননা  'প্রমাণিত যে সৃষ্টিকর্তা সাথে আছেন'  ১৭ জেলের কারাদণ্ড, দুইজনের জরিমানা