১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার

অবৈধ সম্পদ: পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত নায়েকের জরিমানা, স্ত্রীর জেল

বরিশালটাইমস, ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮:৪৩ অপরাহ্ণ, ২৪ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: বরিশালে রায় ঘোষণার পর অবসরপ্রাপ্ত নায়েক ছাড়া পেলেও তার স্ত্রীকে সাড়ে তিন বছর জেল দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদ বিবরণীতে মিথ্যা তথ্য দেওয়ার দায়ে আলাদা মামলায় পুলিশের এক অবসরপ্রাপ্ত নায়েককে জরিমানা এবং তার স্ত্রীকে সাড়ে তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে বরিশালের একটি আদালত।

সোমবার বরিশালের বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মেহেদি আল মাসুদ আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন বলে জানিয়েছেন বেঞ্চ সহকারী গাজীউল হাসান। দণ্ডিতরা হলেন- রাজধানীর আউটার সার্কুলার রোড রাজাবাগের গ্লোব নিবাসের বাসিন্দা মো. আলাউদ্দীন ঢালী এবং তার স্ত্রী মাকসুদা বেগম। আলাউদ্দীন বরিশালের মুলাদী উপজেলার তেরচর গ্রামের আব্দুল মজিদ ঢালীর ছেলে।

তিনি ঢাকা মহানগর পুলিশে নায়েক পদ থেকে অবসরে যান। আদালতের বেঞ্চ সহকারী গাজীউল ইসলাম বলেন, ২০১৭ সালের ২২ মে আলাউদ্দীন ঢালীর বিরুদ্ধে দুদক বরিশাল সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক মো. আল-আমিন কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন।

মামলায় আলাউদ্দীনের বিরুদ্ধে ১৯৮০ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও দখলে রাখার অভিযোগ আনা হয়। এ ছাড়া একই অভিযোগে ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর আলাউদ্দীনের স্ত্রী মাকসুদার বিরুদ্ধে দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক আল-আমিন বাদী হয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় আরেকটি মামলা করেন বলে জানান বেঞ্চ সহকারী।

মামলায় মাকসুদা বেগমের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত ৩০ লাখ ৩৮ হাজার ৯৭৫ টাকার সম্পদ অর্জন ও মিথ্যা তথ্য দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়। বেঞ্চ সহকারী বলেন, ২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদক বরিশাল সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক আল-আমিন অবসরপ্রাপ্ত নায়েক আলাউদ্দীনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

এদিকে তদন্ত শেষে ২০২০ সালের ১৯ নভেম্বর দুদক মাকসুদা ও তার স্বামী আলাউদ্দীনকে আসামি করে আদালতে আরেকটি অভিযোগপত্র জমা দেন বলে জানান গাজীউল ইসলাম। তিনি বলেন, সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত আলাউদ্দীনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন; যা অনাদায়ে তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তবে তাৎক্ষণিক জরিমানার টাকা পরিশোধ করে মুক্তি পান আলাউদ্দীন।

একই ধারায় মাকসুদাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়; যা অনাদায়ে তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এ ছাড়া আরেকটি ধারায় তাকে তিন বছর সশ্রম কারাদণ্ডের পাশাপাশি ১৭ লাখ ৩১ হাজার ২৫ টাকা জরিমানা করা হয়। রায় ঘোষণা শেষে মাকসুদাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান আদালতের বেঞ্চ সহকারী।

81 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন