২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

আইনি লড়াইয়ে গ্রামীণের কন্ট্রোল ফিরিয়ে আনা হবে: চেয়ারম্যান সাইফুল মজিদ

বরিশালটাইমস, ডেস্ক

প্রকাশিত: ০১:০৩ অপরাহ্ণ, ১১ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল:: বরিশালে আয়োজিত গ্রামীণ ব্যাংক বরিশাল জোনের সহকর্মীদের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. একেএম সাইফুল মজিদ বলেছেন, পেনশন নিয়ে কোনো টেনশন করবেন না। আমি ও আমার পরিচালনা পর্ষদ যতদিন আছে, ততদিন অন্তত পেনশন নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না। আমরা চেষ্টা করছি আরো সুযোগ সুবিধা বাড়াতে। আমি পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি, আপনারা যতটা পরিশ্রম করেন, সে তুলনায় আপনাদের সুযোগ সুবিধা অনেক কম। আমরা এই সুযোগ সুবিধা বাড়াতে কাজ করছি। একইসাথে পদোন্নতির আশ্বাস দিলেন গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও এমডি দুজনেই।

বরিশালের জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে ৯ জুন রবিবার সন্ধ্যায় এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। বরিশাল জোনে কর্মরত গ্রামীণ ব্যাংকের সকলস্তরের সহকর্মীদের সাথে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. একেএম সাইফুল মজিদ আরও বলেন, গ্রামীণফোন, গ্রামীণ কল্যাণসহ ৫৪টি প্রতিষ্ঠান এই গ্রামীণ ব্যাংকের টাকায় হয়েছে। গ্রামীণ টেলিকমের সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৯০ হাজার কোটি টাকা। যা বাইরে চলে যাচ্ছে। এ নিয়ে মামলা করা হয়েছে, আইনি লড়াইয়ে গ্রামীণের কন্ট্রোল ফিরিয়ে আনা হবে বলে জানান চেয়ারম্যান সাইফুল মজিদ।

সম্মানিত অতিথি ব্যাবস্থাপনা পরিচালক নূর মোহাম্মদ তার বক্তব্যে বরিশালের ৭৬ শাখার প্রায় ৫০০ সহকর্মীকে পদোন্নতির আশ্বাস দিয়ে খেলাপী ঋণ আদায়সহ কু-ঋণ আদায় বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। এর আগে শিল্পকলা একাডেমি ভবনের সামনে থেকে ফুলেল শুভেচছা জানিয়ে বরণ করা হয় গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান, এমডিসহ উর্ধতন কর্মকর্তাদের।

এরপর মিলনায়তনে আসন গ্রহণ শেষে যোনাল ম্যানেজার মো. মোশারেফ হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রদীপ কুমার সাহা, উপ-মহাব্যবস্থাপক মামুনুর রশিদ, শাখা পরিচালনা বিভাগ-দক্ষিণাঞ্চলের প্রধান আব্দুল হাদী।

বরিশালের ১০ উপজেলা ও ঝালকাঠি নিয়ে গঠিত বরিশাল জোনের ৭৬ টি শাখা থেকে আগত প্রায় ৫০০ কর্মকর্তা কর্মচারীদের পক্ষে মতামত প্রকাশে অংশ নেন এরিয়া পর্যায়ের কর্মকর্তারা। শাহনাজ পারভীন ও আবু সাদত মো. ফিরোজ আলমের সঞ্চালনায় বেলা তিনটা থেকেই বরিশালের ১০ উপজেলা ও ঝালকাঠি জেলার গ্রামীণ ব্যাংকের সহকর্মীরা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জড়ো হতে শুরু করেন।

চেয়ারম্যানসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তখনও পটুয়াখালী জোনের কুয়াকাটায় ত্রাণ বিতরণ কাজে ছিলেন। স্বাভাবিক কারণেই চারটার পরিবর্তে সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। অবশ্য চেয়ারম্যানসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

তবে এভাবে ব্যাংকের চেয়ারম্যানসহ ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের কাছে পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বেশিরভাগ সহকর্মীরা। তারা কেউ কেউ গ্রামীণ জনপদে কাজের সমস্যা ও সম্ভাবনা তুলে ধরেন। সবকিছু ছাপিয়ে পদোন্নতির সম্ভাবনা হয়ে ওঠে মূল আলোচ্চ্য বিষয় ।

গ্রামীণ ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ কল্যাণ, গ্রামীণ টেলিকমসহ ৫৪টি প্রতিষ্ঠান ছিলো। যা আইনি লড়াইয়ে গ্রামীণের কন্ট্রোল ফিরিয়ে আনা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন। গ্রামীণ ব্যাংকের সদস্যদের মাধ্যমে চলতি বছরে ৩০ কোটি বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির টার্গেট ঘোষণা করেন।’

79 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন