২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

ইয়াবা সেবন করিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, অভিযুক্ত যুবক গ্রেফতার

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৭:০২ অপরাহ্ণ, ০৬ অক্টোবর ২০১৭

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলায় ইয়াবা সেবন করিয়ে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ মামলার আসামি তাপস শীলকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে তাকে গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে শুক্রবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আগৈলঝাড়া থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. শাহজাহান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাতে মামলার অন্যতম আসামি তাপস শীলকে টরকী বন্দর তার সেলুন থেকে গ্রেফতার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে তাপস ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার বিষয়টি স্বীকার করে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে। তবে তদন্তের স্বার্থে ওই তথ্য প্রকাশ করা যাচ্ছে না।

এর আগে ওই মামলার আসামি আগৈলঝাড়া উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের দ্বীজেন জয়ধরের ছেলে দীপক, তার মা পুস্প জয়ধর ও স্ত্রী কচি জয়ধরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আসামিরা ১০ আগস্ট বরিশাল অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক শিহাবুল ইসলামের কাছে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, নির্যাতনের শিকার স্কুলছাত্রী বাহাদুপুর গ্রামের তার মামা বাড়িতে থেকে বাহাদুরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণিতে লেখাপড়া করছিল। তার বাড়ি পার্শ্ববর্তী কোটালীপাড়ার জহরেরকান্দি গ্রামে।

প্রতিদিনের ন্যায় ২৯ জুলাই রাতে দীপকের বাহাদুরপুর গ্রামের বাড়িতে তাপসের সঙ্গে ইয়াবা সেবন করতে আসে গৌরনদীর গোবর্ধণ গ্রামের কুদ্দুস ফকিরের ছেলে কাওসার ফকির ও একই থানার নন্দনপট্টি গ্রামের শফি মৃধার ছেলে সেন্টু মৃধা। ওই রাতে দীপকের স্ত্রী মোবাইল ফোনে ওই স্কুলছাত্রীকে তার ঘরে ডেকে আনেন।

পরে ইয়াবা সেবন করিয়ে স্কুলছাত্রীকে বেসামাল করে ধর্ষণ করে কাওসার। এক পর্যায়ে মেয়েটির জ্ঞান ফিরলে তার ডাক চিৎকারে স্থানীয় লোকজন জড়ো হয়ে দীপক, তার মা ও স্ত্রীকে ধরে পুলিশে দেয়। কিন্তু অপর অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় গত ৩০ জুলাই ওই স্কুলছাত্রী বাদী হয়ে তাপসের বন্ধু কাওসার ফকির, ধর্ষণের সহয়তার জন্য দীপক, তার মা পুস্প রানী, স্ত্রী কচি ও তাপসকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করে।’

8 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন