২৫শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দশতলা বাড়ি তদন্ত শুরু করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর

বরিশালটাইমস, ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৪:৪৪ অপরাহ্ণ, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দশতলা বাড়ি তদন্ত শুরু করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর

জেলা প্রতিনিধি, ঝালকাঠি।। ঝালকাঠি সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (টিইও) খোন্দকার জসিম আহমেদ এর দুনর্ীতি অনিয়ম ও বরিশালে দশতলা ভবন নির্মানের বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ঝালকাঠি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে তদন্ত কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হবে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকার সহকারী পরিচালক (উপবৃত্তি) মো. কবির উদ্দিনকে তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে। তিনি নিজে উপস্থিত থেকে খোন্দকার জসিম আহমেদের বিরুদ্ধে সংশ্লিস্টদের সাক্ষ্য প্রমান গ্রহণ করবেন। ইতিমধ্যে অভিযোগকারী ও সংশ্লিস্টদের উপস্থিত থাকার জন্য চিঠি দেয়া হয়েছে।

চিঠিসূত্রে জানা গেছে, গত ১৮ ডিসেম্বর বিভিন্ন পত্রিকায় খোন্দকার জসিম আহমেদ এর নানা অনিয়ম এবং বরিশাল শহরে করিম কুটির এলাকায় ছয়তলা আলিশান ভবন নির্মানের বিষয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয় এবং বরিশাল জর্ডন রোড নিবাসি সাংবাদিক বায়েজিদ আহমেদ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এসব অভিযোগ তদন্ত করার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সহকারী পরিচালক মো. কবির উদ্দিনকে দায়িত্ব দেন। কবির উদ্দিন অভিযোগকারী বায়েজিদ আহমেদকে ২৮ ফেব্রুয়ারি ঝালকাঠি ডিপিও অফিসে উপস্থিত থাকার অনুরোধ জানিয়েছে।

উল্লেখ্য ২০২১ সালের এপ্রিল মাসে খোন্দকার জসিম আহমেদ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে ঝালকাঠিতে যোগদানের পর থেকে শিক্ষকদের কাছ থেকে নানা অজুহাতে টাকা পয়সা আদায় শুরু করেন। অন-লাইনে শিক্ষক বদলীতে অনিয়ম, ক্ষুদ্র মেরামতের বরাদ্দে স্কুল প্রতি টাকা আদায়, শিক্ষকদের পাসপোর্ট করার অনুমতিতে টাকা গ্রহণসহ নানা অভিযোগে ১৫ জন প্রাথমিক শিক্ষক জসিম আহমেদের বিরুদ্ধে ২০২২ সালের ডিসেম্বর মাসে মহাপরিচালক বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেছিল। এ অভিযোগের বিষয়ে সহকারী পরিচালক অর্থ মো. নুরুল ইসলাম ২০২৩ সালের ৫ মার্চ ঝালকাঠি সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসে তদন্তরে জন্য এসেছিলেন।

অভিযোগকারী শিক্ষকরা জসিম আহমেদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যও দেন। খোন্দকার জসিম আহমেদের অবৈধ অর্থের প্রভাবে সহকারী পরিচালক নুরুল ইসলামের তদন্ত রিপোর্ট গত এক বছরেও প্রকাশ করা হয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঝালকাঠির একাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বলেন, খোন্দকার জসিম আহমেদ ঝালকাঠিতে যোগদান করেছে প্রায় তিন বছর হলো। তাঁর ২০২৬ সালে অবসরে যাওয়ার কথা। তিনি সব সময় দম্ভোক্তি করে বলেন, যত অনিয়মই করি, আমাকে ২০২৬ সালের আগে কেউ ঝালকাঠি থেকে সরাতে পারবে না। উপর থেকে এ চুক্তি করেই এসেছি।

অভিযোগকারী বরিশাল জর্ডন রোডের বাসিন্দা সাংবাদিক বায়েজিদ আহম্মেদ বলেন, নানা ধরনের চাপ উপেক্ষা করে আমি সাক্ষ্য দিতে যাবো। সত্য ঘটনা তথ্য প্রমানসহ তদন্ত কর্মকর্তার কাছে তুলে ধরবো। অভিযুক্ত খোন্দকার জসিম আহমেদ বলেন, আমার বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ ভিত্তিহীন। আমি বৈধভাবে বাড়ি করছি। তার কাগজপত্র আমি তদন্ত কর্মকর্তার কাছে তুলে ধরবো।

14 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন