২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার

করোনাকালে নেচে-গেয়ে রিকশাচালকদের আনন্দ দিলেন কে এই বৃদ্ধ?

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০২:২২ অপরাহ্ণ, ০৯ জুন ২০২০

বার্তা পরিবেশক, অনলাইন :: মঙ্গলবার। সকাল আনুমানিক সাড়ে ৯টা। রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে ওভারব্রিজের অদূরে কয়েকজন রিকশাচালক ও পথচারী ষাটোর্ধ্ব এক বৃদ্ধকে ঘিরে দাঁড়িয়ে আছেন। ওই বৃদ্ধ নানা অঙ্গভঙ্গিতে নেচে নেচে গান গাইছিলেন। উপস্থিত সকলেই হাততালি দিয়ে এবং সুর মিলিয়ে গান গেয়ে বৃদ্ধকে উৎসাহ দিচ্ছিলেন। উৎসাহ পেয়ে বৃদ্ধের নাচ-গান যেন আর শেষ হতে চায় না! গান ও নাচ শুরু করার আগে গানটি কত সালের, কোন ছায়াছবির, কোন সংগীতশিল্পী গানটি গেয়েছেন, ওই ছায়াছবির নায়ক-নায়িকা কে ছিলেন ইত্যাদি সবিস্তারে বর্ণনা দিয়ে কোমর হেলিয়ে দুলিয়ে গানের সঙ্গে নেচে যাচ্ছিলেন এই বুদ্ধ। মৎস্য ভবন থেকে শাহবাগ চৌরাস্তার মোড় পেরিয়ে ওভারব্রিজের সামনে বাস থামলে যাত্রীরা উঁকিঝুঁকি মেরে ক্ষণিকের জন্য বৃদ্ধের নাচ-গান উপভোগ করছিলেন।
বৃদ্ধের বেশভূষাও সকলের নজর কাড়ছিল। শুশ্রুমণ্ডিত বৃদ্ধের পরনে জিন্সের প্যান্ট, ফুলহাতা প্রিন্টের শার্ট, পায়ে জুতা, গলায় ঝুলছে ফুলের মালা। ষাটোর্ধ্ব এই বৃদ্ধের নাম আনোয়ার হোসেন। বাসা কাজী আলাউদ্দিন রোডে।
তিনি নিজেকে একজন মুরগি ব্যবসায়ী পরিচয় দিলেও উপস্থিত সকলে জানালেন, আনোয়ার হোসেন একজন মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তি। বিএসএমএমইউ, বারডেম ও শাহবাগ এলাকাতেই তাকে দেখা যায়। বেশিরভাগ সময় চুপচাপ থাকলেও হঠাৎ হঠাৎ তার নাচ-গানের মুড হলে পরিচিত রিকশাচালকদের নেচে-গেয়ে আনন্দ দেন।
এ প্রতিবেদক বৃদ্ধকে তার নাম জিজ্ঞাসা করলে তিনি একবার ইংরেজিতে এবং আরেকবার বাংলায় তার নাম মো. আনোয়ার হোসেন বলে জানালেন।
পেশা জানতে চাইলে বলেন, কাজী আলাউদ্দিন রোড। জানালেন, ব্রয়লার মুরগির দোকান ছিল তার। লকডাউনের কারণে বর্তমানে দোকানটি বন্ধ রয়েছে। উপস্থিত কয়েকজন রিকশাচালক জানালেন, তিনি মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন।
এই প্রতিবেদক তার স্ত্রী ও ছেলে মেয়ে রয়েছে কি-না জানতে চাইলে বৃদ্ধ উত্তর না দিয়ে হেসে একটি গান গাইতে শুরু করেন। গানটি হলো-‘আমি চাইলাম যারে/ ভবে পাইলাম না তারে/ সে এখন বাস করে অন্যের ঘরে।’

9 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন