২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

করোনায় মৃত মা-বাবা, অনাথ সন্তানদের দায়িত্ব নিচ্ছে ভারতের শিশু সুরক্ষা জাতীয় কমিশন

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৪:১২ অপরাহ্ণ, ২৯ মে ২০২১

করোনায় মৃত মা-বাবা, অনাথ সন্তানদের দায়িত্ব নিচ্ছে ভারতের শিশু সুরক্ষা জাতীয় কমিশন

শিবপ্রিয় দাশগুপ্ত, কলকাত >> করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় ভারতে অনাথ হয়েছে বহু শিশু।কেননা তাদের মা-বাবা-অতিথিরা করোনায় প্রয়াত হয়েছেন। মা-বাবা-অভিভাবকদের হারিয়ে পথে-পথে দিন কাটছে বহু শিশুর। অনিশ্চত হয়ে পড়েছে তাদের ভবিষ্যৎ।  এবার এই অনাথ শিশুদের দেখভালের উদ্যোগ নিল ভারতের শিশু সুরক্ষা জাতীয় কমিশন বা NCPCR। উল্লেখ্য, শুক্রবারই এই প্রসঙ্গে ভারতের সমস্ত রাজ্যগুলিকে যথাযথ ভূমিকা পালনের নির্দেশ দিয়েছে ভারতের সু্প্রিম কোর্টের অবসরকালীন বেঞ্চ। এর পরই এই বিষয়ে পদক্ষেপ নিওয়ার কাজ শুরু করেছে শিশু সুরক্ষা কমিশন।

কমিশনের তরফে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে শুক্রবারই। ওই নির্দেশে বলা হয়েছে, করোনায় মা-বাবা বা অভিভাবক হারানো শিশুদের নাম ও প্রয়োজনীয় তথ্য ‘বাল স্বরাজ’ পোর্টালে আপলোড করতে হবে। শুক্রবারই শীর্ষ আদালত জেলা প্রশাসনগুলিকে এই ধরনের শিশুদের দেখভালের ব্যবস্থা করতে নির্দেশ দিয়েছে। উল্লেখ্য, কেন্দ্রও এই শিশুদের দায়িত্ব নেবে বলে আগেই জানিয়ে৷ দিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত সময়ের মধ্যে হিসেব বলছে দেশে অন্তত ৫৭৭টি এমন শিশুর সন্ধান পাওয়া গেছে  যাদের বাবা ও মা দু’জনেই করোনায় মারা গিয়েছেন। এই শিশুদের  নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে কেন্দ্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলেও জানিয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশুকল্যাণমন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। স্মৃতি ইরানি ট্যুইটারে লিখেছেন, “প্রতিটি বিপন্ন শিশু যারা করোনার তাদের বাবা, মা দু’জনকেই হারিয়েছে তাদের সুরক্ষা ও সমর্থন দিতে ভারত সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ২০২১ সালের ১ এপ্রিল থেকে  এই পর্যন্ত পর্যন্ত সময়কালে সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে ৫৭৭টি শিশুর খোঁজ মিলেছে যাদের অভিভাবকেরা করোনা সংক্রমণে মারা গিয়েছেন।”

ইতিমধ্যে দিল্লিতে করোনায় বাবা-মাকে হারানো শিশুদের শিক্ষার দায়িত্ব নিয়েছে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সরকার। প্রয়োজনে তাদের অর্থসাহায্যের কথাও ঘোষণা করা হয়েছে। একইপথে চলেছে ভারতের আরও দুই রাজ্য কেরল ও তামিলনাড়। এবার বাকি রাজ্য বা কেন্দ্র কী সিদ্ধান্ত নেয়, সেটাই দেখার। তবে করোনা অনাথ হওয়া শিশুদের তথ্য জোগারের কাজ শীর্ষ আদালতের নির্দেশ পাওয়ার পর শুরু করে দিল শিশু সুরক্ষা কমিশন। এক কথায় এটা একটা ভালো উদ্যোগ।

12 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন