২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার

করোনা পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের ওপর দায় চাপাতে চান না, ইয়াসে ক্ষতির পরও সাহায্য চাইলেন না নবীন পট্টনায়ক 

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৫:৩৩ অপরাহ্ণ, ২৮ মে ২০২১

করোনা পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের ওপর দায় চাপাতে চান না, ইয়াসে ক্ষতির পরও সাহায্য চাইলেন না নবীন পট্টনায়ক

শিবপ্রিয় দাশগুপ্ত,  কলকাতা >> করোনা পরিস্থিতিতে ভারতের আর্থিক অবস্থা ভালো যাচ্ছে না। তাই কেন্দ্রীয় সরকারের উপর আর্থিক বোঝা চাপাতে নারাজ ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। এই কারণে শুক্রবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ওড়িশায় ইয়াসের ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে রিভিউ মিটিং করলেও ওড়িশার জন্য কোনও আর্থিক সাহায্য দাবি করলেন না ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক।    শুক্রবার ট্যুইট বার্তায় নবীন লেখেন, “দেশ এখন কোভিড-১৯ অতিমারি সংক্রমণের শীর্ষে রয়েছে। তাই আমরা তাৎক্ষণিক আর্থিক সাহায্য চেয়ে কেন্দ্রের উপর আর্থিক বোঝা বাড়াতে চাইছি না। আমাদের নিজস্ব শক্তিতেই আমরা এই সঙ্কটের মোকাবিলা করব”।

ওড়িশাার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক  শুক্রবার ভুবনেশ্বরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে  ওড়িশার  ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী পরিস্থিতি পর্যালোচনা বৈঠক করেন। ওড়িশার ঘূর্ণঝড় বিধ্বস্ত এলাকাগুলি পরিদর্শন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ট্যুইটারে ধন্যবাদও জানান ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী।

তবে শুক্রবারের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে ভারতের করোনা পরিস্থিতিতে আর্থিক চাপের কথা মাথায় রেখে ইয়াসের ক্ষয়ক্ষতির জন্য নবীন পট্টনায়ক আর্থিক সাহায্য না চাইলেও গত সোমবার ঘূর্ণিঝড় পরিস্থিতির মোকাবিলায় ওড়িশাকে ৬০০ কোটি টাকা করে অর্থসাহায্য দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। পশ্চিমবঙ্গের জন্য ৪০০ কোটি বরাদ্দ ও অন্ধ্র প্রদেশের জন্য ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দের কথাও জানান ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ওড়িশা এবং অন্ধ্রের তুলনায় পশ্চিমবঙ্গ কেন কম অর্থসাহায্য পাচ্ছে, তা নিয়ে সেদিনের ভার্চুয়াল বৈঠকে প্রশ্ন তুলেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বলেছিলেন, “গত ২০২০ সালের ২০ মে আমফানের সময়ও কেন্দ্রের কাছে রাজ্য যত টাকা চেয়েছিল তা দেয়নি। মাত্র ১০০০ কোটি টাকা দিয়েছে। এবারও সেই একই বঞ্চনা।”

9 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন