২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

কোকাকোলার বিজ্ঞাপন নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানালেন আজহারী ও শায়খ আহমাদুল্লাহ

বরিশালটাইমস, ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৫:১৪ অপরাহ্ণ, ১১ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলি বর্বরতার প্রতিবাদে সারাবিশ্বসহ বাংলাদেশেও ইসরায়েলি ও মার্কিন পণ্য বয়কট করছেন সাধারণ জনগণ। সম্প্রতি কোকাকোলা বাংলাদেশে একটি বিতর্কিত বিজ্ঞাপন প্রকাশ করলে তা নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় বইতে শুরু করে।

এরই প্রেক্ষিতে কোক বয়কটের পাশাপাশি বিজ্ঞাপনটিতে কাজ করা অভিনেতারাও পড়েছেন তোপের মুখে। ইতোমধ্যে সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ্যে ক্ষমাও চেয়েছেন বিজ্ঞাপনটিতে কাজ করা মডেলরা। এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন সোশ্যাল মিডিয়া এক্টিভিস্ট ও ইসলামি চিন্তাবিদেরাও। এবার মালয়েশিয়ায় বসবাসরত জনপ্রিয় বাংলাদেশি ইসলামি আলোচক মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী ও দেশের অন্যতম জনপ্রিয় ইসলামি আলোচক শায়েখ আহমাদুল্লাহও এ নিয়ে মুখ খুলেছেন।

আজ মঙ্গলবার (১১ জুন) নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে এক পোস্টে মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী বলেন— ‘কোরবানীর আগে আগে ওদের বিজ্ঞাপনটা অনেকটা পাগলকে সাঁকো না নাড়ানোর অনুরোধের মতোই হয়েছে। পণ্য বয়কটের মুভমেন্ট খানিকটা ঝিমিয়ে পড়েছিল। এবার নতুন করে আরো চাঙ্গা হবে’।

তিনি বলেন, যেকোন আগ্রাসনের বিপক্ষে অবস্থান নিন। যার যতটুকু সম্ভব ইসলাম বিদ্বেষী ও জালিমদের পণ্য কেনা থেকে দূরে থাকুন। ধীরে ধীরে এটা অভ্যাসে পরিণত করুন। পণ্য বর্জন কতোটা শক্তিশালী তা বলার অপেক্ষা রাখে না। মালয়েশিয়াতে তা স্বচক্ষে অবলোকন করছি। এখানে ম্যাকডোনাল্ড এবং স্টারবাকস অনেকটা আইসিউতে।

তিনি আরও বলেন, বর্জন এবং জনসচেতনতা চলবে একইসাথে। শুধু পণ্যই নয়, ইসলাম বিদ্বেষী সবকিছুকেই বর্জন করতে হবে। এবারের ঈদ হোক ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত, হোক চিহ্নিত সকল ইসলাম বিদ্বেষী পণ্যমুক্ত।

অন্যদিকে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজে এক পোস্টে শায়েখ আহমাদুল্লাহ বলেছেন, আপনার ঈদ হোক চিহ্নিত ইসলামবিদ্বেষীদের পণ্যমুক্ত। সাধারণ মানুষের বর্জন যে কত শক্তিশালী হাতিয়ার, তা আজ দিবালোকের মতো স্পষ্ট। ঈমানের দাবিতে এই শক্তিশালী হাতিয়ারকে সঠিক জায়গায় ব্যবহার করুন। আমাদের বর্জন হোক মজলুমের প্রতি ভালোবাসা নিবেদনের জন্য।

প্রসঙ্গত, সমালোচনার মুখে বিতর্কিত বিজ্ঞাপনটি ইউটিউব চ্যানেল সরিয়ে নিয়েছে আলোচনা-সমালোচনা মাঝে কোকাকোলা। মঙ্গলবার (১১ জুন) দুপুরে তাদের ইউটিউব চ্যানেলে সার্চ ‍দিয়ে দেখা যায় বিজ্ঞাপনের ভিডিওটি চ্যানেলে নেই।

তবে ভিডিও সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে কোকাকোলা কর্তৃপক্ষ অফিশিয়ালি কোনো বক্তব্য দেয়নি। এ বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে ছিলেন অভিনেতা ও নির্মাতা শরাফ আহমেদ জীবন, শিমুল শর্মা, আব্দুল্লাহ আল সেন্টু প্রমুখ।

কোক বয়কটের পাশাপাশি তাদেরও বয়কটের হুমকি দিয়েছেন নেটিজেনরা। নেটিজেনদের তোপের মুখে বিজ্ঞাপনে কাজ করার বিষয়ে মুখ খুলেছেন শরাফ আহমেদ জীবনও শিমুল শর্মা।

শরাফ আহমেদ জীবন বলেন, ‘আমি একজন নির্মাতা এবং অভিনেতা হিসেবে সবার কাছে পরিচিত। বিগত দুই দশক ধরে আমি নির্মাণ ও অভিনয়ের সাথে জড়িত। ব্যক্তিগত জীবনে আমি সবসময় মানবাধিকার বিরোধী যেকোনো আগ্রাসনের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছি এবং আপনাদের অনুভূতি ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকেছি।’

এদিকে শিমুল শর্মা বলেন, ‘আমি মাত্র আমার জীবনের পথচলা শুরু করেছি, আমার এই পথচলায় ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুলভ দৃষ্টিতে দেখবেন এবং আমাকে ভবিষ্যতে একজন বিবেকবান শিল্পী হয়ে ওঠার জন্য শুভ কামনায় রাখবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।’

92 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন