১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

জামিনে মুক্ত ১০ দস্যুর পুনর্বাসন প্রক্রিয়াধীন

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৯:৩০ অপরাহ্ণ, ২২ অক্টোবর ২০১৬

স্বাভাবিক জীবনে ফেরার আশায় গত ৫ মাসে সুন্দরবনের ৬ বাহিনী প্রধানসহ ৪৮ দস্যু আত্মসমর্পণ করেছে। এদের মধ্যে প্রথম দফায় মাস্টার বাহিনীর ১০ জন জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। তারা এখন নিজ নিজ এলাকায় স্বাভাবিক জীবনযাপন করছেন। তবে সরকারিভাবে তাদের  পুণর্বাসনের বিষয়টি র‌্যাব সদর দফতরে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

র‌্যাব-৮ এর উপ অধিনায়ক মেজর আদনান কবীর বলেন, ‘প্রথম দফার ১০ জন জামিনে মুক্ত হয়েছেন। এরা বাগেরহাটের রামপালের পেড়িখালী ও ফয়লা, মংলার চিলা ও খুলনার কয়রা এলাকায় অবস্থান করছেন। স্থানীয় থানা পুলিশ তাদের ওপর নজরদারী করছে। র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগও তাদের গতিবিধির ওপর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখছে। স্থানীয় জনপ্রতিধিরাও নিয়মিত এদের কার্যক্রম মনিটরিং করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন পর্যন্ত জামিনে মুক্ত হয়ে স্বাভাবিক জীবনে থাকা ১০ দস্যুর কেউ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত হয়নি। তাদের মধ্যে এ  লক্ষণ পাওয়াও যায়নি। স্থানীয় লোকজনও তাদের স্বাভাবিক জীবনকে সাধুবাদ জানিয়েছে এবং তারা প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করছে। তবে দু’একটি এলাকায় এদের নিয়ে মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে।’

মেজর আদনান বলেন, ‘মুক্ত থাকা ১০ জনকে ঘোষণানুযায়ী পুণর্বাসন করার কিছু প্রস্তাবনা র‌্যাব সদর দফতরে পাঠানো হয়েছে। যা এখনও প্রক্রিয়াধীন। ওই প্রস্তাবনাগুলো চূড়ান্ত অনুমোদনের পর প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ হলেই তাদের বিকল্প কর্মসংস্থান করাসহ পুর্ণবাসন করা হবে।’

র‌্যাব-৮ এর তথ্য অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠা থেকে এ পর্যন্ত অভিযানে ৬৩২টি আগ্নেযাস্ত্র, ১৭ হাজার ৪৫৯ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। পাশাপাশি ২১৩ জন দস্যুকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গত ৩১ মে থেকে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত প্রায় ৫ মাসে সুন্দরবনের ৪৮ দস্যু ১১৭টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৭ হাজার রাউন্ড গুলি জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করেছে। এর মধ্যে গত ৩১ মে সুন্দরবনের কুখ্যাত দস্যু মাস্টার বাহিনীর ১০ জন সক্রিয় সদস্য ৫২টি দেশি-বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও প্রায় ৪ হাজার ৫শ’ রাউন্ড গোলাবারুদ, গত ১৪ জুলাই মজনু ও ইলিয়াস বাহিনী প্রধানসহ ১১ জন জলদস্যু ২৫টি দেশি-বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও ১ হাজার ২০ রাউন্ড গোলাবারুদ, গত ৭ সেপ্টেম্বর আলম ও শান্ত বাহিনীর ১৪ জন সক্রিয় দস্যু ২০টি দেশি-বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র  ও ১ হাজার ৮ রাউন্ড বিভিন্ন প্রকার গোলাবারুদ এবং গত ২০ অক্টোবর সুন্দরবনের কুখ্যাত দস্যু সাগর বাহিনীর প্রধান মো. আলমগীর শেখ ওরফে সাগরসহ ১৩ জন সক্রিয় দস্যু ২০টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৫৯৬ রাউন্ড গুলি জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করে। পাশাপাশি আত্মসমর্পণ না করা এই সাগর বাহিনীর আরও ৬ জনকে ১৯ অক্টোবর রাতে ৩টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেফতার করা হয়।

13 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন