২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

জায়েদ খানকে মসজিদ কমিটির সভাপতি করায় স্যোশাল মিডিয়ায় তুমুল সমালোচনা

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০১:১১ অপরাহ্ণ, ২৭ মে ২০২১

জায়েদ খানকে মসজিদ কমিটির সভাপতি করায় স্যোশাল মিডিয়ায় তুমুল সমালোচনা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল >> নিজ জন্মস্থান পিরোজপুরের মাছিমপুরের আল হেরা জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি হয়েছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। কমিটির পক্ষ থেকে তার হাতে উপহারস্বরূপ তুলে দেওয়া হয় জায়নামাজ ও টুপি। এই মসজিদে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই যুক্ত ছিলেন তার বাবা প্রয়াত এমএ হক। তার মৃত্যুর পর ছেলে জায়েদ খানের ওপর এই দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয়। তবে একজন সিনেমার মানুষকে মসজিদ কমিটির সভাপতি করায় এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে চলছে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা। রাসূল আহমেদ নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আশা করছি, সামনের ছবিগুলোর শুটিংয়ের জন্য মসজিদটাকে কাজে লাগাবে।’

মেজবাহ উদ্দিন হেলাল লিখেছেন, ‘কাজটা কী ঠিক হলো! নূর নবী লিখেছেন, ‘পাশের লোকগুলো কি ইসলামের পক্ষে আছে বলে মনে হয় না।’

এমডি ফিরোজ হোসাইন লিখেছেন, ‘৫ ওয়াক্ত নামাজ যদি কেউ না পড়ে, তাকে মসজিদের কমিটিতে না রাখা উত্তম। কারণ মসজিদ হলো পবিত্র, সেখানে কমিটি গঠন করতে হবে মসজিদের মুসল্লিদের মধ্যে থেকে, সেখানে কেউ বেশি করে টাকা দান করলেই যে তাকে কমিটিতে রাখতে হবে এমন কোনো আইন নেই, আল্লাহতায়ালা সবাইকে কবুল করুন।’

মোনায়েম শেখ রক্সি লিখেছেন, ‘তাকে মসজিদ কমিটিতে মানায় না। কারণ সে ছবি করে, মেয়েদের সঙ্গে নাচানাচি করে।’ সমালোচনার পাশাপাশি অনেকেই আবার বিষয়টি নিয়ে ইতিবাচক মন্তব্য করেছেন।

এমডি হাফিজ লিখেছেন, ‘মাশাআল্লাহ আলহামদুলিল্লাহ সবার ভাগ্যে এই সব দায়িত্ব আসে না। জায়েদ ভাই, আপনি এগিয়ে যান দোয়া করি আপনি এক সময় পিরোজপুরের এমপি হবেন, ইনশাআল্লাহ, দোয়া রইলো।’

কামরুনাহার আন্না লিখেছেন, ‘আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তোমাকে ভালো রাখুন।’

এদিকে, মসজিদ কমিটির সভাপতি হওয়া প্রসঙ্গে চিত্রনায়ক জায়েদ খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি অভিনয় করি। অনেকের ধারণা যার অভিনয় করে বা সিনেমার মানুষ তারা খারাপ। আমাকে এই পদে নেওয়া হয়েছে এখন অনেকের ভুল ভাঙবে। আল্লাহ আমাকে কবুল করেছেন বলেই এমন একটি মর্যাদাকর স্থান পেয়েছি।’

আপনাকে কেন সভাপতি করা হলো চিত্রনায়ক জবাবে বলেন, ‘আসলে আমারও এই প্রশ্ন ছিল। সাধারণত মসজিদ কমিটির সভাপতি বা সেক্রেটারি হন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কিংবা গণ্যমান্য ব্যক্তি। কিন্তু আমাকে সভাপতি করা হয়েছে কেন? এটা জানতে গিয়ে তারা জানান, আমার কোনো বাজে অভ্যাস নেই, মদ-সিগারেট খাই না। যার কারণে আমাকে এই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।’

সঙ্গে যোগ করেন, তার বাবার অপূর্ণ রেখে যাওয়া কাজগুলো তিনি পূর্ণ করবেন। প্রাথমিকভাবে এই মসজিদে একটি এয়ারকুলার (এসি) কিনে দেবেন তিনি।’

14 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন