৮ িনিট আগের আপডেট বিকাল ৫:২৮ ; রবিবার ; ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২৪
EN Download App
Youtube google+ twitter facebook
×

ধর্ষণের পরে খুন লাশ গুম মামলায় ৩ আসামির যাবজ্জীবন

বরিশালটাইমস রিপোর্ট
৪:১০ অপরাহ্ণ, জুন ১৪, ২০১৭

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার কাউয়ারেখা গ্রামে কিশোরী রোকসানা আক্তারকে (১৫) অপহরণ, ধর্ষণ এবং হত্যার পর লাশ গুম করার মামলায় ৩ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ তিনটি মেয়াদে দণ্ডাদেশ এবং জরিমানা করা হয়েছে। বুধবার (১৪ জুন) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারক শেখ আবু তাহের এ আদেশ দেন।

এই সময় আসামী স্বপনের উপস্থিতিত ছিলেন। বাকি ৫ আসামী পলাতক রয়েছেন।

রায়ে অপহরণের অপরাধে প্রধান আসামি স্বপন হাওলাদারকে ১৪ বছর কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া হত্যার অপরাধে স্বপন হাওলাদার, সমীর হাওলাদার ও গৌরাঙ্গ বৈরাগীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা এবং লাশ গুম করার অপরাধে ৩ আসামির প্রত্যেককে ৫ বছর কারাদন্ড ও ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

অপরদিকে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় এই মামলার ৩ আসামিকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। তারা হলেন- স্বপনের বাবা রফিকউদ্দিন হাওলাদার, রফিকের ভাই মোকসেদ হাওলাদার এবং স্থানীয় বাসিন্দা সফিজউদ্দিন।

আদালত সূত্র জানায়, ঘটনার শিকার রোকসানা আক্তারের বাড়ি গৌরনদী উপজেলার কসবা এলাকায়। ঘটনার কয়েকদিন আগে সে উজিরপুরের কাউয়ারেখা গ্রামে নানী বাড়ি বেড়াতে যায়। ২০০০ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারী রাত ১০টার পর নানী বাড়িতে অন্যান্যদের সাথে ভিসিআর দেখছিলো রোকসানা। ভাত খেতে ডাকার অজুহাতে নিকটাত্মীয় স্বপন তাকে ডেকে বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে নিয়ে যায়।

সেখানে নিয়ে স্বপন এবং তার দুই সহযোগী সমীর ও গেরাঙ্গা তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। ধর্ষণ শেষে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে তারা। এরপর তার লাশ পার্শ্ববর্তী বাড়ির অতুল হালদারের বাড়ির টয়লেটের স্লাবের নীচে ট্যাংকিতে ফেলে দেয় তারা।

সবাই ভিসিআর দেখায় ব্যস্ত থাকায় ওই রাতে রোকসানার কোন খোঁজ পড়েনি। পরদিন সকালে রোকসানার খোঁজ পড়ে। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজির পর অতুল হালদারের বাড়ির টয়লের স্লাব এলোমেলো দেখে সন্দেহ হয় এলাকাবাসীর।’

এরপরও টয়লেটের স্লাব তুলে ট্যাংকির ভেতর থেকে রোকসানার লাশ উদ্ধার করে এলাকাবাসী। খবর পেয়ে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল মর্গে প্রেরণ করে।

এ ঘটনায় একই বছরের ৬ মার্চ রোকসানার বড় ভাই লালন ফকির বাদীয় হয়ে ৬ জনের বিরুদ্ধে অপহরণ, ধর্ষণ, হত্যা এবং লাশ গুমের অভিযোগে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

২০০৩ সালের ২৬ জানুয়ারী ৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এই মামলার অভিযোগপত্র দেন তদন্ত কর্মকর্তা উজিরপুর থানার এসআই আব্দুল হাকিম।

পরে ট্রাইব্যুনালে ২৫ জনের মধ্যে ১৬ জনের সাক্ষগ্রহণ শেষে বিচারক ওই রায় দেন। চাঞ্চল্যকর মামলার রায় ঘোষণা উপলক্ষ্যে আদালত প্রাঙ্গনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।”

বরিশালের খবর

আপনার ত লিখুন :

 

ভারপ্রাপ্ত-সম্পাদকঃ শাকিব বিপ্লব
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮ | বরিশালটাইমস.কম
বরিশালটাইমস মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
ইসরাফিল ভিলা (তৃতীয় তলা), ফলপট্টি রোড, বরিশাল ৮২০০।
ফোন: +৮৮০২৪৭৮৮৩০৫৪৫, মোবাইল: ০১৮৭৬৮৩৪৭৫৪
ই-মেইল: barishaltimes@gmail.com, bslhasib@gmail.com
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮
টপ
  সরকারের বেঁধে দেওয়া দাম মানছেন না মাংসবিক্রেতারা  নলছিটিতে ঘুমন্ত ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা, অভিযোগ স্ত্রী ও ছেলের বিরুদ্ধে  ঝালকাঠিতে পিতাকে পিটিয়ে হত্যা করলো ছেলে  কুয়াকাটায় ব্রিজ ভেঙে ট্রাক খালে: পর্যটকসহ ভোগান্তিতে স্থানীয়রা  হারলেই বাদ, তামিমের বরিশাল কীভাবে পাড়ি দেবে কঠিন পথ  বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা পুরুষ ও খর্বাকার নারী একফ্রেমে  বিশ্ব অর্থনীতিতে সংকটের মধ্যেও ভালো অবস্থানে বাংলাদেশ : বিশ্বব্যাংকের এমডি  শিক্ষক মুরাদের বরখাস্ত চাইলেন ভিকারুননিসার ছাত্রীরা  চাঁদা দিতে না পারায় দাফন হলো না গৃহবধূর লাশ  মাদকের বিরুদ্ধে জনপ্রতিনিধিদের বিশেষ নজর দেওয়ার নির্দেশ