২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

পটুয়াখালিতে শীর্ষেন্দুকে নিয়ে উচ্ছ্বাস

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০১:৩১ পূর্বাহ্ণ, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬

বরিশাল: প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে জবাব পাওয়া পটুয়াখালীর স্কুলছাত্র শীর্ষেন্দু বিশ্বাসকে নিয়ে উচ্ছ্বাসে ভাসছে তার শিক্ষক, সহপাঠীসহ এলাকাবাসী । সোমবার পটুয়াখালী সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে শীর্ষেন্দুকে লেখা প্রধানমন্ত্রীর চিঠিটি তার হাতে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় শীর্ষেন্দুকে ঘিরে তার সহপাঠীরা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে। গর্ব প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন তার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শীর্ষেন্দুর চিঠির জবাব দেওয়ায় আমরা খুব আনন্দিত।

 

আমরা শীর্ষেন্দুকে নিয়ে গর্বিত।’ শীর্ষেন্দুর মা শীলা রাণী সন্নামত বলেন, ‘বিশ্বাসই হয় না প্রধানমন্ত্রী আমার ছেলের চিঠির উত্তর দিয়েছেন! তিনি (প্রধানমন্ত্রী) চিঠির জবাব দেওয়ায় আমরা ভীষণ খুশি।’ এদিকে, চিঠি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক স্কুলছাত্র শীর্ষেন্দুর পড়ালেখার দায়িত্ব নেন। এছাড়া জেলা প্রশাসক পরিষদের পক্ষ থেকে শীর্ষেন্দুকে ৫০ হাজার টাকা দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

 

জেলা প্রশাসক এ কে এম শামিমুল হক সিদ্দিকী বলেন, ‘শীর্ষেন্দু পায়রা নদীর ওপর একটি ব্রিজ নির্মাণের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখে। প্রধানমন্ত্রী তার চিঠি পেয়ে ব্রিজ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ। এখন থেকে শীর্ষেন্দুর পড়ালেখার খরচ জেলা প্রশাসন বহন করবে।’ পৌর প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি খান মোশাররফ বলেন, ‘শিশুদের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময়ই উদার। শীর্ষেন্দুর দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়ে তিনি আবারও মহানুভবতার পরিচয় দিলেন।’ এদিকে এ খবর পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে শীর্ষেন্দুর লেখাপড়ার জন্য ১০ হাজার টাকা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সুলতান মৃধা। মির্জাগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিকী বলেন, অনেক আগে থেকে এখানে একটা সেতুর আকাঙ্ক্ষা ছিল।

 

সেতুটা হলে পটুয়াখালী থেকে ঝালকাঠী সরাসরি যাওয়া যাবে, যেখানে এখন বরিশাল হয়ে যেতে হয়। খুলনা যেতে পাঁচ-ছয় ঘণ্টার পরিবর্তে মাত্র দুই ঘণ্টার মতো লাগবে। শীর্ষেন্দুর এ সাহসিকতা আসলেই প্রসংশনীয়। পায়রা নদী মির্জাগঞ্জের ওপর দিয়ে গেছে। মির্জাগঞ্জবাসীসহ গোটা পটুয়াখালীবাসী শীর্ষেন্দুর কাছে ঋণী। প্রতিবেশীদের একজন গীতাঞ্জলী দে বলেন, শীর্ষেন্দুকে অনেকদিন ধরে দেখছি। অন্যান্য শিশুদের চেয়ে ও অনেকটাই আলাদা।

 

এরপরও ও যে এমন দুর্দান্ত একটি কাজ করবে তা আমরা ভাবতেও পারিনি। স্থানীয় দোকানি মোহাম্মদ মিঠু বলেন, শীর্ষেন্দুর প্রশংসা করা হলে ওকে বরং ছোট করা হবে। প্রসঙ্গত, খরস্রোতা পায়রা নদী পারাপারে জনসাধারণের দুর্ভোগ লাঘবে গত ১৫ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি লিখে ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানায় পটুয়াখালী সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শীর্ষেন্দু বিশ্বাস। প্রধানমন্ত্রী তার চিঠির জবাবে ব্রিজ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন। ৮ সেপ্টেম্বর লেখা প্রধানমন্ত্রীর চিঠিটি ২০ সেপ্টেম্বর স্কুলে পৌঁছায়।’

10 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন