১ min আগের আপডেট সন্ধ্যা ৬:০ ; বুধবার ; মে ২৭, ২০২০
EN Download App
Youtube google+ twitter facebook
×

প্রয়োজনীয় কিছুই নেই, তবুও বিশেষায়িত হাসপাতাল ঘোষণা

বিশেষ বার্তা পরিবেশক
৮:৫১ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৯, ২০২০

বার্তা পরিবেশক, অনলাইন :: কোভিট-১৯ সন্দেহ ভাজনদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি ছাড়াই বগুড়া মোহাম্মাদ আলী হাসপাতালকে বিশেষায়িত হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। ওই হাসপাতালে আইসিইউ (ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট), ডিজিটাল এক্সরে মেশিন নেই।

এছাড়া পর্যাপ্ত অক্সিজেন সিলিন্ডার ও পিপিই’র (পার্সনাল প্রটেকশন ইক্যুপমেন্ট) সংকটও রয়েছে। অথচ এসবই আইসোলেশনে থাকা রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন বলে সংশ্লিষ্টরা জানায়।

এ কারণে হাসপাতালটি আইসোলেশনের জন্য প্রস্তুত ঘোষণা দেয়ার তিনদিন পেরিয়ে গেলেও সন্দেহভাজন কোনো রোগীকে ভর্তি করানো হয়নি।

করোনাভাইরাস সন্দেহভাজন রোগীদের চিকিৎসার জন্য বগুড়া মোহাম্মাদ আলী হাসপাতালে গত ২৩ মার্চ দুপুর ১টার মধ্যে খালি করা হয়। ওই দিন বিভিন্ন বিভাগে ভর্তি রোগীদের ছাড়পত্র ও অন্য হাসপাতালে স্থানাস্তর করা হয়। এছাড়াও বহিঃর্বিভাগের রোগীদের চিকিৎসা দেয়া বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর ২৪ ও ২৫ মার্চ হাসপাতালটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে ২ মিটার পরপর শয্যা বসানো হয়।

ওই সময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান, করোনাভাইরাস সন্দেহভাজন রোগীদের ২৬ মার্চ থেকে ভর্তি নেয়া হবে। আইসোলেশনে থাকা রোগীদের চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকদের ৩০ সদস্যের একটি প্যানেলও করা হয়েছে। যারা পর্যায়ক্রমে রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার পর সেল্ফ কোয়ারেন্টাইনে যাবেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রোববার পর্যন্ত করোনাভাইরাস সন্দেহভাজন কাউকে ভর্তি করানো হয়নি। আইসোলেশনে থাকা রোগীদের চিকিৎসার জন্য শুধু ১২০টি শয্যা তৈরি রাখা হয়েছে এবং চিকিৎসকদের ব্যবহারের জন্য কিছু পিপিই ছাড়া আর কোনো সরঞ্জাম নেই। অক্সিজেনও রয়েছে খুব কম পরিমাণ। সেখানে আইসিইউ ইউনিট, ডিজিটাল এক্সরে মেশিনও নেই। যা এই রোগীর জন্য বিশেষ প্রয়োজন। এছাড়াও কোভিট-১৯ রোগী মোকাবেলার জন্য মাত্র ২ জন চিকিৎসক রয়েছেন। নার্সদের কোভিট-১৯ মোকাবেলায় নেই কোনো প্রশিক্ষণ।
ওই হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ড. নুরুজ্জামান সঞ্চয় জানান, কোভিট-১৯ এর জন্য এ হাসপাতালটিকে জেলার পক্ষ থেকে বিশেষায়িত হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। ৩০ জনের একটি চিকিৎসা প্যানেলও রয়েছে। এদের মধ্যে ২ জনের কোভিট-১৯ এর প্রশিক্ষণ রয়েছে। তারাই অন্য চিকিৎসকদের শিখিয়ে কাজ চালিয়ে নিতে পারবেন। চিকিৎসকরা কেউ যদি ৪৮ ঘণ্টা চিকিৎসা দেন এরপর তিনি ১৪ দিনের সেল্ফ কোয়ারেনটাইনে যাবেন।

তিনি বলেন, হাসপাতালের আইসিইউ, ডিজিটাল এক্সরে মেশিনের অনেক সংকট রয়েছে। পিপিই (একবার ব্যবহারের জন্য) মাত্র ৪০০টি আছে। ওই হাসপাতালে কোভিট-১৯ এর সন্দেহভাজন কোনো রোগী এখনও ভর্তি করানো হয়নি বলে তিনি জানান।

বগুড়া মোহাম্মাদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক শফিক আমিন কাজল জানান, হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহ করার মতো এখন মাত্র ৩০টি সিলিন্ডার রয়েছে। এছাড়া ১৫২ জন সেবিকার মধ্যে কারোর’ই কোভিট-১৯ এর প্রশিক্ষণ নেই। কোভিট-১৯ এর জন্য ১২০ শয্যা তৈরি থাকলেও রোগীর চাপ থাকলে প্রয়োজনে আরও শয্যা বাড়ানো যাবে।

এদিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান (শজিমেক) হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ড. ওয়াদুদ জানান, ওই হাসপাতালের ১৪টি শয্যা কোভিট-১৯ এর জন্য প্রস্তুত রাখা হলেও কোভিট-১৯ এ সন্দেহভাজন রোগীদের প্রথমে মোহাম্মাদ আলী হাসপাতালে ভর্তি করানো হবে। প্রস্তুতি হিসেবে প্যাথলজি বিভাগে ২৫ জন অনলাইনে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। এদের মধ্যে চিকিৎসক, সেবিকা ও টেকনিশিয়ান রয়েছে।

দেশের খবর

আপনার মতামত লিখুন :

 

বরিশালটাইমস মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে
সম্পাদক : হাসিবুল ইসলাম
ঠিকানা: শাহ মার্কেট (তৃতীয় তলা),
৩৫ হেমায়েত উদ্দিন (গির্জা মহল্লা) সড়ক, বরিশাল ৮২০০।
ফোন: ০৪৩১-৬৪৮০৭, মোবাইল: ০১৮৭৬৮৩৪৭৫৪
ই-মেইল: [email protected], [email protected]
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮
টপ
  করোনার নিয়ম ভেঙে মদপান, গ্রেফতার এড়াতে মেয়রের মৃত্যু নাটক!  আম্পানের প্রভাব না কাটতেই কালবৈশাখীর হানা  বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে ঘরে, প্রাণ গেল মা-মেয়েসহ ৩ জনের  স্কুলছাত্রীকে দেড় বছর ধরে উত্ত্যক্ত, কলেজছাত্রের কারাদণ্ড  করোনায় আক্রান্ত এমপি এবাদুল করিম  চুল কেটে দিলো স্বামী, গোপনাঙ্গে মরিচের গুড়া দিলেন শাশুড়ি  করোনা থেকে রক্ষা নাই, ভারতে এবার ‘ব্যানানা কোভিড’ হানার আশঙ্কা  ভারী বর্ষণে জলমগ্ন ঝালকাঠি শহর  করোনার উপসর্গ নিয়ে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সুজেয় শ্যাম হাসপাতালে  করোনায় হাসপাতালেই বিয়ে সারলেন ডাক্তার-নার্স