২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

বরগুনায় ঘুমন্ত স্ত্রীকে ২৭ কোপ ‘দিলেন’ স্বামী

বরিশালটাইমস, ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৭:৩৮ অপরাহ্ণ, ২৫ এপ্রিল ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: বরগুনার আমতলীতে ঘুমন্ত স্ত্রী শাহনাজ বেগমকে কুপিয়ে জখম কারার অভিযোগ উঠেছে তাঁর স্বামী মাহতাবের বিরুদ্ধে। পরে আহত অবস্থায় শাহনাজকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়।

স্বজনদের দাবি, শাহনাজের শরীরে ২৭টি কোপের চিহ্ন রয়েছে। বৃহস্পতিবার ভোরে বরগুনার আমতলী উপজেলার ঘোপখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আমতলী থানা পুলিশ স্বামী মাহতাব হাওলাদারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।

শাহনাজের স্বজনরা জানিয়েছেন, আমতলী উপজেলার ঘোপখালী গ্রামের মাহতাব হাওলাদারের স্ত্রী তিন সন্তানের জননী শাহনাজ বেগম গত মঙ্গলবার বাবা নান্না কাজীর বাড়িতে বেড়াতে যান। এ নিয়ে ক্ষিপ্ত ছিলেন মাদকাসক্ত স্বামী মাহতাব।

বৃহস্পতিবার ভোরে ঘুমন্ত শাহনাজকে মাহাতাব ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথা, মুখমণ্ডল, হাত, পা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ২৭টি কোপ দেয়। পরে মৃত্যু ভেবে ফেলে রাখে। খবর পেয়ে তাঁর স্বজনরা থানায় খবর দেয়।

পুলিশ এসে মাহতাবকে আটক করে এবং গুরুতর আহত শাহনাজকে উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে সংঙ্কটজনক অবস্থায় বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

শাহনাজের মামা নাশির হাওলাদার বলেন, ‘আমার ভাগ্নি তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী মাহতাব আমার ভাগ্নিকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথা, মুখমণ্ডল, হাত, পা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ২৭টি কোপ দেয়। পরে মৃত্যু ভেবে ফেলে রাখে। আমরা এ ঘটনার শাস্তি দাবি করছি।’

এ বিষয়ে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. লুনা বিনতে হক বলেন, ‘ওই নারীর মাথা, মুখমণ্ডল, হাত, পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহৃ রয়েছে। তাকে সংঙ্কটজনক অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

এ নিয়ে আমতলী থানার ওসি কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, ‘খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে মাহাতাবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। মামলা হলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

95 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন