১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার

বরগুনায় বুলবুলের তাণ্ডবে বিধ্বস্ত ৫ সহস্রাধিক ঘরবাড়ি, নিহত ২

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১২:০১ অপরাহ্ণ, ১১ নভেম্বর ২০১৯

বার্তা পরিবেশক, বরগুনা ::: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে বরগুনার ৬ উপজেলায় ৫ সহস্রাধিক কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের এই প্রভাবের মধ্যে জেলায় দু’জন নিহতহ হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন আশ্রয়কেন্দ্রে বার্ধক্যজনিত কারণে এবং অপরজন গাছ থেকে পড়ে মারা যায়।

আর ৬ উপজেলায় কমপক্ষে ১৭ জন আহত হয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৮৬ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
এছাড়া, চলতি আমন মৌসুম ও শীতকালীন শাকসবজির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

ইতোমধ্যে প্রচণ্ড বাতাসে বরগুনার পাথরঘাটার সমুদ্র ও সুন্দরবন সংলগ্ন গ্রামগুলোতে দুই শতাধিক কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। হাজারো গাছ উপড়ে পড়ায় বন্ধ হয়ে গেছে রাস্ত-ঘাট।

বরগুনা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কন্ট্রোল রুম সূত্র ২ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

এদিকে, বঙ্গোপসাগরে ১৫ জন জেলেকে বহনকারী একটি মাছ ধরা ট্রলার নিখোঁজ রয়েছে।

শনিবার ভোর রাতে ৫টার দিকে ঘুর্ণিঝড় বুলবুল বরগুনায় আঘাত হানে। টানা বৃষ্টিতে কৃষিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এর মধ্যে আমন ৯ হাজার ৮৬৩ হেক্টর, শীতকালীন শাকসবজি ৫শ’ ৫০ হেক্টর, গবাদি পশু নিহত ৩টি, আহত ৪১টি, ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি ৫ হাজার ২শ’ ৩৫টি, ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ৮৬টি, ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ ৩৮.৫ কিলোমিটার। মৎস্য বিভাগের সূত্র অনুযায়ী, ক্ষতিগ্রস্ত পুকুর ৬০টি, মৎস্য ঘের ৬৫টি, চিংড়ি ঘের ৩৫টি।

বরগুনার জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা সফলভাবে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছি। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি, পুলিশ, গণমাধ্যমকর্মী ও বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বিত প্রচেষ্টায় দুর্যোগে আমাদের বরগুনায় মারাত্মক কোনও ক্ষয়-ক্ষতি হয়নি।

তিনি আরও বলেন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত ২৯৪ মেট্রিক টন চাল, ৭ লক্ষ টাকা, ৩৫০ প্যাকেট শুকনা খাবার ও ৫০টি কম্বল বরাদ্দ করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে আমরা ক্ষয়-ক্ষতি নির্ধারণ করেছি। পূর্ণাঙ্গ ক্ষয়ক্ষতির তালিকা প্রস্তুত করে মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসিত করা হবে।

7 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন