২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

বরিশাল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছাড়ছে না কোন লঞ্চ

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৭:১১ অপরাহ্ণ, ২৯ মে ২০১৭

বরিশাল থেকে সকল নৌযান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র কারণে সোমবার (২৯ মে) বেলা আড়াইটা থেকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ এর যুগ্ম পরিচালক জয়নাল আবেদীন।

আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।  উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরে ৭ বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৫ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

উপকূলীয় জেলা ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং এসব জেলার কাছের দ্বীপ ও চরগুলো ৫ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে।

অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের  যুগ্ম পরিচালক জয়নাল আবেদীন সাংবাদিকদের বলেন, ‘যাত্রীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে নৌযান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। আবহাওয়ার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফের নৌযান চলাচল চালু করা হবে।’

এদিকে, পূর্ব-মধ্য  বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’ আরও সামনে  উত্তরদিকে অগ্রসর হয়ে মঙ্গলবার (৩০ মে) সকালের দিকে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার উপকূল এলাকায় আঘাত হানতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

ঘূর্ণিঝড় ’মোরা’ এর অগ্রবর্তী অংশের প্রভাবে সোমবার (২৯ মে) বিকাল থেকে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও সংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় এবং সমুদ্রবন্দরগুলোর ওপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। আবহাওয়া অধিতফরের সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আবহাওয়া অধিতফরের আবহাওয়াবিদ মো. আরিফ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’ পূর্ব-মধ্য  বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে। এর প্রভাবে আজ সোমবার দুপুর ১২ টায় (২৯ মে ) চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৪০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে ও মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপূর্ব এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপূর্ব দিকে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত ও উত্তর দিকে অগ্রসর হয়ে ৩০ মে সকাল নাগাদ চট্টগ্রাম – কক্সবাজার উপকূল অতিক্রম করতে পারে।  ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’ অতিক্রমকালে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, পিরোজপুর  এবং এর কাছাকাছি দ্বীপ ও চরে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। এছাড়া ঘণ্টায় ৬২-৮৮ কিলোমিটার বেগে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।’

আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’-এর প্রভাবে উপকূলীয় জেলা  এবং   দ্বীপ ও চরে  নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪-৫ ফুটের বেশি উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও টলারগুলোকে  পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।”

8 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন