২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

বরিশাল ব্যাপ্টিশ মিশন রোডে ওদের সন্ত্রাস চলছেই!

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১২:৪৭ পূর্বাহ্ণ, ০৭ নভেম্বর ২০১৭

বরিশাল শহরে এবার পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ পড়ায় সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন মিলন নামে এক যুবক। এমনকি সেই সংবাদ নিয়ে মন্তব্য করায়ও তাকে দফায় দফায় মারধর করা হয়। ঘটনাটি ঘটেছে শহরের ব্যাপ্টিশ মিশন রোড এলাকায়। কিন্তু হামলার শিকার যুবক মিলন অসহায় হওয়ায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ নিয়ে পারছেন না।

তাছাড়া সেই ঘটনার পর থেকে ওই এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাস ছাত্রদল ক্যাডার আজাদ, মোশারেফ ও মনির তাকে ভয়ভীতির ওপরে রাখছেন। অভিযোগ রয়েছে- স্থানীয় এক ব্যক্তির পাশে থেকে এই দুই ব্যক্তি ওই এলাকায় অপরাধের স্বর্গরাজ্য গড়ে তুলেছেন। সাম্প্রতিকালে তারা স্থানীয় নিরাপরাধ বেশ কয়েকজন যুবককে পিটিয়ে ছিলেন। ওই ঘটনায় সেই সব যুবকেরা পাল্টাপাল্টি অবস্থান নিয়ে মোশারেফকেও পিটুনি দেয়। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ মোশারেফ ও আজাদ প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে বেশ কয়েকদিন এলাকায় সন্ধার পরে স্বশস্ত্র মহড়া দেয়। মূলত এই বিষয়টি নিয়েই গত শনিবার একটি সংবাদ প্রকাশ করেছিল প্রথম সকাল।

আর সেই পত্রিকাটি পড়ে এলাকায় ফিরে একজনকে বলছিলেন শহরের বিবির পুকুর পাড়ের ঝালমুড়ি বিক্রেতা মিলন। যে বিষয়টি সহজভাবে নিতে পারেনি ওই দুই সন্ত্রাসী। সাথে সাথে মুড়ি বিক্রেতা ব্যাপ্টিশ মিশন রোডের ভাড়াটিয়া মিলনকে বেধম পিটুনি দেয়। পরবর্তীতে তাকে সন্ত্রাসীদের আশ্রয়দাতা তাদের বাসায় ডেকে নিয়েও নানা ধরনের হুমকি ধামকি দেয়। যে কারণে প্রথমে ভয়ে মুখ খুলতে রাজি হননি মুড়ি বিক্রেতা মিলন।

পরে আইনী সহযোগিতা পাওয়ার ক্ষেত্রে সহয়তা দেওয়ার বিষয়টি অবহিত করলে তিনি বলেন- প্রতিদিনের ন্যায় শনিবার বিবির পুকুর পাড় থেকে একটি পত্রিকা কিনে পড়ছিলেন। ওই সময় ঘটনাটি পড়ে এলাকায় গিয়ে একজনের কাছে বলছিলেন।

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন ছাত্রলীগ ক্যাডার আজাদ ও মোশারেফ। এক পর্যায়ে তারা একত্রিত হয়ে মিলনের ওপরে হামলা চালিয়েছেন। এই হামলার চিত্র দেখে স্থানীয় অনেকেই হতবাক হয়েছেন। কারণ প্রকাশ্যে এধরনের হামলার ঘটনা সাধারণত কমই দেখা যায়। এই ঘটনায় এলাকাবাসীর ভেতরে অনেকাংশে আতঙ্ক বাড়িয়ে দিয়েছে।

সঙ্গত কারণে কালবিলম্ব না করে এই সব সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কার্যকর পদক্ষেপ রাখা জরুরি বলে মনে করছেন সাধারণ মানুষ। তবে এই বিষয়ে জানাতে ছাত্রদল ক্যাডার আজাদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়ে তাকে পাওয়া যায়নি।”

 

36 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন