২ ঘণ্টা আগের আপডেট বিকাল ৫:১ ; শুক্রবার ; জুলাই ৩০, ২০২১
EN Download App
Youtube google+ twitter facebook
×

বাউফলে প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি সরকারি স্বাস্থ্যসেবা

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট
৭:০৯ অপরাহ্ণ, জুন ২৯, ২০২১

বাউফলে প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি সরকারি স্বাস্থ্যসেবা

মো. জসীম উদ্দিন, বাউফল >> পটুয়াখালীর বাউফলে একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে আছে সরকারি স্বাস্থ্যসেবা। প্রতিনিয়ত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে কাঙ্খিত সেবা না পেয়ে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন অধিকাংশ রোগী। সরকারি হাসপাতালে রোগী এলেই নানান পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে পাঠানো হয় বাণিজ্যিক ক্লিনিক ও ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারে। আর সেখানেই রোগীদের নিয়ে চলে গলাকাটা বাণিজ্য। এসব অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত আছেন স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি। ফলে সাধারণ মানুষ ভয়ে প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছেন না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন সেবা ক্লিনিক ও হেলথ কেয়ার ক্লিনিকের বিরুদ্ধে রয়েছে নানান অভিযোগ। হেলথ কেয়ার ক্লিনিকের পূর্বের নাম ছিল নিরাময় ক্লিনিক। একাধিক প্রসূতি নারীর মৃত্যু ও সিজার অপারেশনের পর পেটে গজ ব্যান্ডেজ রেখে সেলাই দেওয়াসহ নানা কারণে উচ্চ আদালত সম্প্রতি নিরাময় ক্লিনিকের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেয়। এরপর থেকেই নিরাময় ক্লিনিকের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় হেলথ কেয়ার ক্লিনিক।

বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সরকারি নিয়ম নীতিমালা অনুসরণ না করেই সেবা ক্লিনিক পরিচালনার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সম্প্রতি এক প্রসূতি নারীর মৃত্যু ঘটনায় তদন্ত টিম গঠন করেন পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন। এরপর আর রহস্যজনক কারণে ওই তদন্ত রিপোর্ট আলোর মুখ দেখেনি। এছাড়া বাউফলের বিভিন্ন এলাকায় থাকা অধিকাংশ ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকের নেই কোন সরকারি অনুমোদন।

বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি সূত্র জানায়, প্রতিনিয়ত সেবা ও হেলথ কেয়ার ক্লিনিকের দালাল হাসপাতালে এসে রোগীদের টানাটানি করে নিয়ে যায়। আবার পেটের পীড়া, জ্বর, সর্দি ও কাশিসহ সামান্য অসুখ হলেই চিকিৎসকরা রোগীদের নানা পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে ওই দুটি ক্লিনিক ও ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারে পাঠিয়ে দেয়।

কাজ করতে গিয়ে পায়ের গোড়ালিতে ব্যাথা পেয়েছেন ইলিয়াস হোসেন নামের এক রোগী। তিনি বলেন, আমি বাউফল হাসপাতালে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক ইউরিন, ব্লাড সুগার, এক্স-রে, লিপিড প্রোফাইলসহ প্রায় ৪০০০ টাকার টেস্ট দিয়েছেন। পরে আমি ফার্মেসি থেকে একটি ব্যাথার ওষুধ নিয়ে খাওয়ার পর ভাল হয়ে যাই। আমি ৪ হাজার টাকার টেস্ট করতে যায়নি।

এ প্রসঙ্গে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহাকে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা বাউফলসহ পুরো জেলার নিয়ম বহির্ভূতভাবে পরিচালিত ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকগুলোর তালিকা প্রশাসনকে দিয়েছি। আশা করি প্রশাসন দ্রুত সময়ে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবে।

পটুয়াখালি, বিশেষ খবর

আপনার মতামত লিখুন :

 

ভারপ্রাপ্ত-সম্পাদকঃ শাকিব বিপ্লব
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮ | বরিশালটাইমস.কম
বরিশালটাইমস লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
শাহ মার্কেট (তৃতীয় তলা),
৩৫ হেমায়েত উদ্দিন (গির্জা মহল্লা) সড়ক, বরিশাল ৮২০০।
ফোন: ০৪৩১-৬৪৮০৭, মোবাইল: ০১৮৭৬৮৩৪৭৫৪
ই-মেইল: [email protected], [email protected]
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮
টপ
  বাউফলে কোরবানীর বর্জ্য সরিয়ে নিতে বলায় মাদ্রাসায় হামলা  কীর্তনখোলায় নিখোঁজ চা দোকানি, উদ্ধারে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস  তজুমদ্দিনের মেঘনায় ইলিশের আকাল, মহাজনের দাদনে দিশেহারা জেলেরা  করোনাভাইরাস: কঠোর লকডাউন আরও বাড়ানোর সুপারিশ  পটুয়াখালীতে মোটরসাইকেল চালককে ছুরিকাঘাতে হত্যা  ওসির সাথে ফটোসেশনে আসামি! পুলিশ বলছে পলাতক  পৌর কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধার জমি দখলের অভিযোগ  বরিশালে একদিনে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও ১৬ জনের মৃত্যু  বাংলাদেশি নারীকে ক্যাম্পে ধর্ষণ, বিএসএফ সদস্য গ্রেফতার  বাবুগঞ্জে ইউএনও’র মোবাইল নম্বর ক্লোন করে চাঁদা দাবি