২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

বেতাগীতে ইউএনও’র নামে চাঁদা দাবি

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৪:২৮ অপরাহ্ণ, ২৯ মে ২০২১

বেতাগীতে ইউএন ’র নামে চাঁদা দাবি

বরগুনা প্রতিনিধি >> বরগুনার বেতাগীতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) পরিচয়ে এক মিষ্টান্ন বিক্রেতার কাছে ২০ হাজার টাকা দাবি করা হয়েছে। বিষয়টি জানার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সতর্কতামূলক পোস্ট দিয়েছেন বেতাগী ইউএনও মো. সুহৃদ সালেহীন।

জানা যায়, উপজেলার বিবিচিনি ইউনিয়নের ডিসির হাট বাজারে পরিমল দাসের ‘পরিমল মিষ্টান্ন ভান্ডার’ নামের একটি দোকান রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বিবিচিনি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৮ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো. বাদলের কাছে বেতাগী ইউএনও পরিচয়ে একটি ফোন আসে। এসময় ফোনে বাদল মেম্বারকে স্থানীয় মিষ্টি ব্যবসায়ী পরিমলের কাছে গিয়ে মোবাইলে ইউএনও সাথে কথা বলিয়ে দেওয়ার জন্য পরিমলের দোকানে যেতে বলা হয়। এরপর বাদল মেম্বার পরিমলের মিষ্টির দোকানে গিয়ে ইউএনও কথা বলবেন বলে মুঠোফোন পরিমলের কাছে দেন। এ সময় ইউএনও পরিচয় দিয়ে মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী পরিমলের কাছে তার পরিচয় এবং ব্যক্তিগত মুঠোফোন নম্বর চাওয়া হয়। এরপর পরিমল তার পরিচয় এবং ব্যক্তিগত নাম্বার মুঠোফোনে কথা বলা ব্যক্তিকে দেন।

এর কয়েক মিনিট পর বেতাগী ইউএনও পরিচয়ে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তি পরিমলের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে ফোন করে বলেন, ‘আমরা আপনার এলাকায় একটা ম্যাজিট্রেট টিম পাঠাবো। এবং বড় বড় কিছু দোকানে কিছু টাকা জরিমানা করবো। আপনি যদি আমাদের লিস্টে থাকেন তাহলে আপনাকে ২০ হাজার টাকা দিতে হবে। তাহলে ১ বছরে আপনাকে আর কেউ ডেস্টার্ব করবে না। যদি এখন আপনি ২০ হাজার টাকা আমাদের দেন তাহলে আপনার নামটা আমাদের খাতায় থাকবে।’

মিষ্টি ব্যবসায়ী পরিমল বলেন, বাদল মেম্বার আমার দোকানে এসে মুঠোফোনে এক ব্যক্তিকে ধরিয়ে দেন। ওই ব্যক্তি আমার কাছে আমার পরিচয় আর মোবাইল নাম্বার জানতে চাইলে আমি তাকে তা দেই। কিছুক্ষণ পর আমাকে ফোন দেয়া হবে বলে ওই
ব্যক্তি ফোন কেটে দেন। এর কিছুক্ষণ পরই এক ব্যক্তি আমার মুঠোফোনে কল দিয়ে নিজেকে বেতাগী ইউএনও হিসেবে পরিচয় দেন। এসময় তিনি অভিযান পরিচালনা করা হবে বলে আমার কাছে ২০ হাজার টাকা দাবি করেন। আমি আমার বড় ভাইয়ের সাথে তাকে কথা বলতে বললে তিনি এক পর্যায়ে ফোন কেটে দেন।

এ বিষয়ে বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, একটি প্রতারক চক্র এপ্স এর মাধ্যমে বিভিন্ন নম্বর থেকে ফোন দিয়ে মানুষের সাথে প্রতারণা করে। নির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ইউএনও পরিচয়ে টাকা দাবির বিষয়টি অবগত হওয়ার পর বেতাগী ইউএনও তাঁর ফেসবুক আইডি থেকে সতর্কবার্তা প্রচার করেন। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, বেতাগী, বরগুনা এর অফিসিয়াল নাম্বার ক্লোন করে বিভিন্ন জনকে ফোন করা হচ্ছে। এ বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য সকলকে অনুরোধ করা হলো।

10 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন