২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

‘ভোটারদের টাকা দিতে বাধা দেওয়ায়’ ছুরিকাঘাতে চেয়ারম্যানের সমর্থককে হত্যা

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৩:০৫ অপরাহ্ণ, ১১ এপ্রিল ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল:: বরগুনার আমতলীতে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে এক চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর সমর্থককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল বুধবার রাতে উপজেলা সদরের পূর্ব মহিষডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম হিরণ গাজী (৫০), তিনি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোতাহার উদ্দিন মৃধার সমর্থক।

জানা গেছে, আগামী ২৮ এপ্রিল অনুষ্ঠেয় আমতলী সদর ইউপি নির্বাচনে ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অভিযোগ পাওয়া গেছে, দুজন প্রার্থী মোতাহার উদ্দিন মৃধা ও আবুল বাশার নয়ন মৃধা ভোটারদের টাকা বিতরণ করছেন। গতকাল বুধবার রাত ১১টার দিকে আবুল বাশার মৃধার সমর্থক ইউসুফ, কাদের সরদার, শহীদ মালাকারসহ ৪০-৪৫ জন পূর্ব মহিষডাঙ্গা গ্রামে ভোটারদের টাকা দিচ্ছিলেন। এ সময় মোতাহার মৃধার সমর্থক হিরণ গাজীসহ ১০-১২ জন তাঁদের টাকা দিতে বাধা দেন। তাতে ক্ষিপ্ত হন নয়ন মৃধার সমর্থকেরা। একপর্যায়ে নয়ন মৃধার সমর্থকদের ছুরিকাঘাতে হিরণ গাজী গুরুতর আহত হন। তাঁকে উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে হাসপাতালের চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, পূর্বশত্রুতার জেরে নির্বাচনকে কাজে লাগিয়ে আবুল সরদারের ছেলে কাঁদের সরদার ও তাঁর লোকজন হিরণকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী মিলন সরদার এবং দেলোয়ার সরদার বরিশালটাইমসকে বলেন, ‘আবুল বাশার নয়ন মৃধার সমর্থকেরা গ্রামে টাকা বিতরণ করছিলেন। মোতাহার মৃধার সমর্থক হিরণ গাজীসহ ১০-১২ জন তাতে বাধা দেন। একপর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে নয়ন মৃধার সমর্থকেরা তাঁকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছেন। আমরা তাঁকে রক্ষা করতে এগিয়ে গেলে আমাদেরও তাঁরা ধাওয়া করেন।’

নিহত হিরণ গাজীর স্ত্রী তাসলিমা বেগম বলেন, ‘মোর কিছুই রইল না। ওরা মোর স্বামীরে মাইর‍্যা হালাইছে। মুই অ্যাইয়ার বিচার চাই।’

চেয়ারম্যান প্রার্থী মোতাহার উদ্দিন মৃধা বরিশালটাইমসকে  বলেন, ‘আবুল বাশার নয়ন মৃধার নেতৃত্বে তাঁর ভাই পান্নু মৃধা, আজাদসহ ৪০-৫০ জন গ্রামে ঢুকে টাকা বিতরণ করছিল। এ সময় আমার লোকজন ঘোড়া ঘোড়া বলে ডাক-চিৎকার করে। তাতে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার সমর্থক হিরণ গাজীকে তারা ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে। আমি এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করছি।’

তবে অপর চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবুল বাশার নয়ন মৃধা এ অভিযোগ অস্বীকার করে বরিশালটাইমসকে  বলেন, ‘আমি গতকাল আমার ব্যবসার কাজে বাসায় সিসি ক্যামেরার আওতায় ছিলাম। মোতাহার মৃধা তাঁর লোকজন দিয়েই হিরণকে হত্যা করে পরিকল্পিতভাবে আমার ওপর দায় চাপাচ্ছেন। আমি এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করছি।’

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. চিন্ময় হাওলাদার বরিশালটাইমসকে বলেন, ছুরিকাঘাতে আহত হিরণ হাসপাতালে আনার আগেই মারা গেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বরিশালটাইমসকে বলেন, ভোটারদের টাকা দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে হিরণ গাজী নামের একজনকে ছুরিকাঘাত করা হলে হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় থানায় মামলা হচ্ছে। জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মামলা জটিলতার কারণে এই ইউপিতে যথাসময়ে নির্বাচন হয়নি। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ২৫ জুলাই নির্বাচন হয়। ওই নির্বাচনের ধারাবাহিকতায় ৫ বছর পর গত ১০ মার্চ নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করে। সে অনুযায়ী আগামী ২৮ এপ্রিল ভোটগ্রহণ হবে।’

110 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন