২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

ভোলায় চিংড়ি রেণু সংগ্রহের নামে অন্য পোনা নিধন

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ, ২০ এপ্রিল ২০১৬

ভোলা : ভোলার মেঘনায় প্রতিনিয়ত বাগদা ও গলদা চিংড়ি রেণু সংগ্রহের নামে অবাধে নিধন হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির হাজার হাজার মাছের পোনা। এতে অন্যান্য প্রজাতির মাছসহ জলজ প্রাণির ক্ষতির প্রভাব প্রতিদিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

শিশু-কিশোর, বৃদ্ধ ও মাঝারি বয়সের ছেলে-মেয়েরা মশারি ও ঠেলা জাল দিয়ে মেঘনায় অবাধে বাগদা-গলদা রেণু ধরছে। আর এই রেণু ধরতে ধ্বংস হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা। গত দুইদিন মনপুরার মেঘনার বিভিন্ন পয়েন্টে ঘুরে দেখা গেছে এই চিত্র।’

স্থানীয় প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সামনে এই রেণু আহরণ করলেও তারা এই বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।

মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, একটি বাগদা ও গলদা চিংড়ি রেনু আহরণ করার সময় ৯ থেকে ১২০০ প্রজাতির মাছের পোনা ধ্বংস হয়। এর মধ্যে প্রায় ২ হাজার প্রজাতির মাছ ও জলজ প্রাণি ধ্বংস হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

চাঁদপুর মৎস্য গবেষণার প্রধান ইলিশ গবেষক ড. আনিসুর রহমান বলেন, চিংড়ি পোনা আহরণের নামে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে ইলিশসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ও জলজপ্রাণী। এখনই কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে ইলিশশূন্য হয়ে পড়বে মেঘনা।

মনপুরার মেঘনার বিভিন্ন পয়েন্ট ঘুরে দেখা গেছে, সিজনাল জেলেরা মশারি ও ঠেলা জাল দিয়ে বাগদা ও গলদা রেণু আহরণ করছে। শিশু-কিশোর, বৃদ্ধ ও মাঝারি বয়সের ছেলেমেয়েরা দলবেঁধে রেণু সংগ্রহ করছে। প্রতিটি দলে ২০-২৫ জন রয়েছে। এদের অনেকের কোমড় ও হাতে রয়েছে বালতি ও হাড়ি। মেঘনায় কয়েকবার জাল টানার পর ডাঙ্গায় উঠে আসে। পরে জালের কোণায় জমানো বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা, জলজপ্রাণী ও চিংড়ির পোনা বড় থালা বা বাসনে রাখা হয়। পরে বেছে বেছে আলদা করা হয় বাগদা-গলদার পোনা। বাগদা-গলদার পোনা আলাদা করা শেষ হলে অবশিষ্ট মাছের পোনা, জলজপ্রাণিসহ বিভিন্ন প্রজাতির পোনা শুকনো মাটিতে ফেলে দেয়া হয়। এভাবে মেঘনায় প্রতিনিয়ত বাগদা-গলদা চিংড়ি পোনা আহরণের নামে অবাধে নিধন হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনাসহ জলজপ্রাণী।

এ ব্যাপারে মনপুরা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সাইদুর রহমান রেজা বলেন, ‘মেঘনায় অভিযানের পাশাপাশি গণসচেতনতার কাজ চলছে। প্রয়োজনীয় লোকবলের অভাবে অভিযান সামান্য ব্যাহত হলেও শেষ পর্যন্ত অভিযান চলবে।’

14 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন