২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

মঠবাড়িয়ায় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৬:৩৯ অপরাহ্ণ, ২৬ অক্টোবর ২০১৬

পিরোজপুর: মঠবাড়িয়ায় প্রথম দফার ইউপি নির্বাচনে ধানীসাফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৮নং ওয়ার্ডের স্থগিত একটি ভোট কেন্দ্রে পুন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নতুন করে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। বুধবার পুলিশ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর(চশমা প্রতীক) শিশু পুত্রকে অপহরণের চেষ্টার অভিযোগ পেয়ে আলগী পাতাকাটা গ্রামে পুলিশ দিনভর অভিযান চালিয়ে স্থানীয় শরীফ বাড়ির বাগানে মজুদকৃত দুইটি রামদা, একটি টেটা, লোহার পাইপ ও দুই বস্ত্ ালাঠি উদ্ধার করেছে। এঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুলাল তালুকদার(৪৫) নামে আ’লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থককে গ্রামবাসি আটকের পর পুলিশে সোপর্দ করেছে।

থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২২মার্চ প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ মঠবাড়িয়ার ধানীসাফা ইউপি নির্বাচনে সহিংসতায় ৮নং ওয়ার্ড পাতাকাটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের স্থগিত ভোট কেন্দ্রে আগামী ৩১ অক্টোবর সোমবার পুনরায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনকে সামনে রেখে ওই ইউনিয়নে নতুন করে উত্তেজনা দেখা দেয়। স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের হুমকী ধামকি ও দেশীয় অস্ত্রের মহড়ার অভিযোগ ওঠে আ.লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে।

বুধবার  চশমা প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রফেসর রফিকুল ইসলামের ৫ম শ্রেণী পড়–য়া ছাত্র আরাফাত আবদুল্লাহকে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগে স্থানীয় জনতা ধাওয়া করে দুলাল তালুকদার নামে একজন আ’লীগ প্রার্থীর সমর্থককে আটক করে। এরপর থেকে দিনভর ওই গ্রামে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ খবর পেয়ে পাতাকাটা গ্রামের শরীফ বাড়ির বাগান থেকে পরিত্যক্ত দেশীয় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী রফিকুল ইসলামের অভিযোগ স্থগিত হওয়া ভোট কেন্দ্র নতুন করে ভোট ঘোষণার পর থেকে আ.লীগ প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা এরাকায় ভীতিকর অবস্থার সৃষ্টি করে। গ্রামের সাঁকো ফেলে দিয়ে চলাচলে বাঁধা, স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের হুমকী ধামকি ও এলাকায় অস্ত্রের মহড়া চালানো হয়। এমনকি স্বতন্ত্র প্রার্থীর ছেলে অপহরণের চেষ্টাও চালায় আ.লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা।

এ ব্যাপারে আ’লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদ তালুকদার তারকর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আটকৃত দুলাল তালুকদার আমার সমর্থক। সে বাজারে পান কিনতে যাওয়ার সময় চশমা প্রতীকের লোকজন তাকে আটক করে মারধর করেছে। তিনি দাবি করেন ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা স্বতন্ত্র প্রার্থীর লোকজন মজুদ করে আমার ওপর দোষ চাপানোর অপচেষ্টা করছে।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোঠা উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে। ধানীসাফা ইউনিয়নে পুলিশী টহল জোরদার করা হয়েছে। এছাড়া আলগী পাতাকাটা গ্রামে সার্বক্ষণিক পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে।

15 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন