২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

যৌতুকের দাবিতে কন্যাসহ স্ত্রীকে বাড়িছাড়া করলেন স্বামী ও শ্বশুর

বরিশালটাইমস, ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৫:৩৩ অপরাহ্ণ, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: কুষ্টিয়া কুমারখালী উপজেলায় যৌতুকের টাকা না পেয়ে গৃহবধূকে মারধর করে গুরুতর জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার (২৪ এপ্রিল) সকালে মারধরের শিকার ওই নারী কুমারখালী থানায় যৌতুক ও মারধর উল্লেখ করে তার স্বামী, শ্বশুর ও ননদেরসহ অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ওই নারীর নাম মিতা খাতুন। তার বাবার বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার ছেঁউড়িয়া মন্ডলপাড়া গ্রামে। মিতা খাতুনের ভাষ্য, প্রায় বিশ বছর আগে উপজেলার ছেঁউড়িয়া মন্ডলপাড়া গ্রামের মোকাদ্দেস হোসেনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের সময় তার স্বামীকে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার দেওয়া হয়। বিয়ের ৪-৫ বছর পর থেকে যৌতুকের জন্য তাকে ফের চাপ দিতে থাকেন স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন।

যৌতুক দিতে অস্বীকৃতি জানালে তার স্বামী, শ্বশুর ও ননদেরা প্রায়ই তাকে মারধর করতেন। অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে তাকে শারীরিক নির্যাতনও করা হতো। তাদের সংসারে ১১ বছরের এক কন্যা সন্তান আছে। মেয়ের ভবিষ্যতের কথা ভেবে এত দিন তিনি সব মুখ বুজে সহ্য করতেন। এখন তার সহ্য সীমা ছাড়িয়ে গেছে।

অভিযোগ ও পরিবার সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাতে মিতার কাছে যৌতুকের টাকা দাবি করেন তার স্বামী মোকাদ্দেস হোসেন। মায়ের বাড়ি থেকে টাকা এনে দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে স্বামী, শ্বশুর ও ননদরা মিলে লাঠি দিয়ে বেদম মারধর করা হয়। এমন পরিস্থিতিতে তালাক দেওয়ার হুমকি দিয়ে মোকাদ্দেস ও তার পরিবারের লোকজন মিতাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন।

নিরুপায় হয়ে তিনি মায়ের বাড়িতে আশ্রয় নেন। মিতার মা বলেন, ‘যৌতুকের টাকার জন্য মেয়েটাকে প্রতিনিয়ত মারধর করা হয়। বিয়ের সময় টাকা দিয়েছি। এখন আরও টাকার জন্য মেয়েকে মারধর করা হয়েছে, লাঠি সোটা দিয়ে মারধর করা হয়েছে। অসুস্থ অবস্থায় মেয়েটাকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে মোকাদ্দেস ও তার পরিবার।’

এ বিষয়ে মিতা বলেন, ‘বিয়ের পর থেকে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে আমাকে মারধর করত তারা। শ্বশুর-শাশুড়ির কথা মতো স্বামী যৌতুকের জন্য চাপ সৃষ্টি করত। আমাদের এক মেয়ে আছে। মেয়ের কথা চিন্তা করে অনেক নির্যাতন সহ্য করেছি।

আমি এখন এর উপযুক্ত বিচার চাই। অভিযোগের বিষয়ে জানার জন্য মোকাদ্দেসের মুঠোফোনে কল করা হলে তার নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আকিবুল ইসলাম বলেন বিষটি আমি রাতে জানতে পেরেছি থানায় অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

64 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন