৯ মিনিট আগের আপডেট বিকাল ২:৪৬ ; শুক্রবার ; ডিসেম্বর ২, ২০২২
EN Download App
Youtube google+ twitter facebook
×

রাইফেল দিয়ে মেসের নারী বাবুর্চিকে পেটালো পুলিশ!

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট
১:১৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০১৮

পটুয়াখালীর মহিপুর থানা পুলিশ মেসের বাবুর্চি মোসা: নাজমা বেগম (৩৭)। দুপুরে ভাত শেষ হয়ে যাওয়ায় পুলিশের এক সদস্যের রাইফেলের আঘাতে গুরুতর আহত হন তিনি। পুলিশ সদস্যের বর্বর নির্যাতনের ঘটনার চার দিন পর সোমবার (২ এপ্রিল) দুপুরে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তাকে কুয়াকাটা ২০ শয্যা হাসপাতাল থেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশালে নেয়া হয়।

বর্তমানে নাজমা বেগম বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। ঘটনাটি ঘটেছিল গত ২৯ মার্চ দুপুরে মহিপুর থানায়।

খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে- ২৯ মার্চ দুপুরে ঘটনার পর পর থানায় ডাক্তার ডেকে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। কিন্তু নাজমার অবস্থার অবনতি দেখে অতি গোপনে তাকে কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। কিন্তু বিষয়টি ফাঁস হয়ে যাওয়ার ভয়ে তিনদিন পর সেখান থেকে তাকে পুলিশ বেষ্টনীর মধ্য দিয়ে নেয়া হয় কুয়াকাটা ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে।

নাজমার অবস্থার আরও অবনতি হতে থাকলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে বরিশাল রেফার করেন। পুলিশ আহত নাজমার চিকিৎসার সকল দায়িত্ব নিলেও অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় মহিপুর থানা পুলিশের ভূমিকা নিয়ে সংশয়ের সৃষ্টি হয়েছে।’

কুয়াকাটা ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার নাজমা বেগম জানান, ’গত ২৯ মার্চ (বৃহস্পতিবার) দুপুরের খাবারের শেষ পর্যায়ে নির্বাচনী ডিউটি শেষে মহিলা পুলিশ সদস্য ইমি তাকে খাবার দিতে বলেন। কিন্তু ভাত শেষ হয়ে গেছে বলতেই রেগে যায় সে। একপর্যায়ে সে আমার গালে চড়-থাপ্পর মারে এবং মাথার পিছনে রাইফেল দিয়ে আঘাত করে। এতে আমি সাথে সাথে বেহুশ হয়ে যাই এবং বমি করতে থাকি। পরক্ষণে ওসি স্যার মহিপুর বাজার থেকে ডাক্তার ডেকে চিকিৎসা করান। পরে আমার অবস্থা খারাপ দেখে আমার বোন নুরজাহানকে খবর দেন তারা।’

নাজমার বোন আলীপুর মৎস্য বন্দরের বাসিন্দা মোসা. নুরজাহান বেগম বলেন, ’আমি খবর পেয়ে থানায় গেলে ওসি স্যার আমাকে কুয়াকাটা হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। কিন্তু আমি কুয়াকাটা না নিয়ে কলাপাড়া উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যাই। এতেও পুলিশের লোকজন আমার সাথে রাগারাগি করেন এবং বিষয়টি কাউকে জানাতে নিষেধ করেন।

এমনকি আমাদের আত্মীয়-স্বজনদেরও না জানানোর জন্য বলেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনদিন পরে ১ এপ্রিল পুলিশ চাপ প্রয়োগ করে নাম কাটিয়ে কুয়াকাটা হাসপাতালে নিয়ে আসতে বাধ্য করেন। রাতে আমার বোন মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়লে ডাক্তার দ্রুত তাকে বরিশাল নিয়ে যেতে বলেন।’

নাজমার ভাই সোহেল জানান, ‘ঘটনাটি ২৯ মার্চ ঘটলেও আমি খবর পেয়েছি সোমবার (২এপ্রিল) সকালে। আমার বোনের অবস্থার এখনও কোন উন্নতি হয়নি।’

সোহেল আক্ষেপ করে আরও বলেন, ‘দেশে কি কোন আইন নাই? পুলিশ কি আইনের উর্ধ্বে?’

কুয়াকাটা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মনিরুজ্জামান বরিশালটাইমসকে বলেন, ‘রোগীর মাথার ব্যাথা কমছিলো না বিধায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল প্রেরণ করা হয়েছে।’

এ ব্যাপারে মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: মিজানুর রহমান বলেন, ‘২৯ মার্চ আমি ইউপি নির্বাচনের দায়িত্ব পালনে ব্যস্ত ছিলাম। পরে জেনেছি মহিলা কনস্টেবলের সাথে বাবুর্চির ঝগড়া হয়েছে। বর্তমানে মাইক্রো ভাড়া করে বরিশাল নিয়ে তাকে চিকিৎসা করানো হচ্ছে।

তবে মহিলা অনেক দিন থেকেই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। বিষয়টি আমি এসপি স্যারকে জানিয়েছি বলে জানান তিনি।’

Other

 

আপনার মতামত লিখুন :

 
ভারপ্রাপ্ত-সম্পাদকঃ শাকিব বিপ্লব
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮ | বরিশালটাইমস.কম
বরিশালটাইমস মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
ইসরাফিল ভিলা (তৃতীয় তলা), ফলপট্টি রোড, বরিশাল ৮২০০।
ফোন: +৮৮০২৪৭৮৮৩০৫৪৫, মোবাইল: ০১৮৭৬৮৩৪৭৫৪
ই-মেইল: [email protected], [email protected]
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮
টপ
  দলের ব্যর্থতায় পদত্যাগ করলেন বেলজিয়াম কোচ  বানারীপাড়ায় পার্বত্য শান্তি চুক্তির রজত জয়ন্তীতে বিশাল আনন্দ র‌্যালী  বরিশালে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েও দুশ্চিন্তায় কেয়ার পরিবার  বাজি ধরে গরম চা পান, কণ্ঠনালী পুড়ে মারা গেলেন রোহিঙ্গা যুবক  ভোলায় ডাকাত ‘আবদুল্লাহ বাহিনীর’ প্রধানসহ আটক ৫  ইউপি চেয়ারম্যান পদে স্বামী-স্ত্রীর ভোটযুদ্ধ!  ওমরাহ করতে মক্কায় শাহরুখ খান  কাভার্ডভ্যান নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাবা-ছেলেসহ নিহত ৫  বরিশালে ককটেল বিস্ফোরণ  বিদেশে থেকেও বিস্ফোরক মামলার প্রধান আসামি হলেন বিএনপি নেতা