১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

শেবাচিমে দু’দিনের শিশুর রক্ত সংগ্রহ, অভিযুক্তকে পুলিশে সোপর্দ

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৬:২৮ অপরাহ্ণ, ২৬ নভেম্বর ২০১৭

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে দু’দিন বয়সী শিশুর হাত থেকে রক্ত নিয়ে পরীক্ষা করানোর অজুহাতে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টার সময় এক দালালকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন শিশুটির স্বজনেরা। রোববার (২৬ নভেম্বর) বেলা দেড়টার দিকে হাসপাতালের নবজাতক শিশু ওয়ার্ডে এই ঘটনা ঘটে।

সন্তানটি বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলার কালিকাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা মোশারেফ হোসেনের।

শিশুটির স্বজনেরা বরিশালটাইমসকে জানিয়েছেন, শিশুটির মা খাদিজা বেগম বেশ কয়েকদিন বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি হন। গত ২৪ নভেম্বর তাদের একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু অসুস্থতার কারণে তাকে ভর্তি করা হয় নবজাতক শিশু ওয়ার্ডে।

শিশুটির পিতা মোশারেফ হোসেন জানান, মায়ের শারীরিক অবস্থা ভালো না হওয়ায় শিশুর পাশে তাদের অন্য স্বজনরা ছিলেন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এক দালাল এসে স্বজনদের হঠাৎ করেই বলেন, চিকিৎসক কিছু পরীক্ষা দিয়েছেন, রক্ত লাগবে।

বিষয়টি জানালে সন্তানের কাছে গিয়ে দেখি তার হাতে সিরিঞ্জ ঢুকিয়ে অনেকটা রক্ত নিয়ে নিয়েছেন ওই লোক। পরবর্তীতে তাকে কারণ জানতে চাইলে কোনো সদুত্তর না দিয়ে পরীক্ষার জন্য তিন হাজার টাকা দাবি করেন।

কীসের পরীক্ষা চিকিৎসক ও সেবিকাদের কাছে জানতে গেলে তারাও কিছু জানেন না বলে জানান। এরপর ওই লোকের পরিচয় জানতে চাইলে তিনি নিজের নাম সুজন ও ডি ল্যাব নামের ডায়গনস্টিক সেন্টারের লোক বলে পরিচয় দেন। ডি ল্যাবের একটি কাগজও দেখার তিনি।

কিন্তু পরীক্ষার-নিরীক্ষার বিষয়ে কোনো সদুত্তর বা চিকিৎসকের পরামর্শপত্র দিতে না পারলে অন্য রোগীর স্বজনরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেন।

বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মামুন বরিশালটাইমসকে জানান, তারা ডি ল্যাবের পরিচয়দানকারী সুজন নামে ওই ব্যক্তিকে আটক করেছেন। তিনি একজন চিহ্নিত রোগীর দালাল। শিশুর বাবা একটি লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন। এই ঘটনায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।’’

12 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন