১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার

সন্তানের লাশ ভেসে ওঠার অপেক্ষায় পরিবার

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৬:১০ অপরাহ্ণ, ০১ জুন ২০২০

বার্তা পরিবেশক, অনলাইন :: পাহাড়ি নদী সোমেশ্বরী। অনেকের আশীর্বাদ হয়ে আসলেও কখনো কখনো বিষাদ বয়ে আনে। নদীটিতে ঢলের পানিতে ভেসে আসা লাকড়ি কয়লা কুড়িয়ে জীবন চলে অসংখ্য দরিদ্র পরিবারের। আবার এসব কুড়াতে গিয়ে সেই জীবন চলেও যায় অনেকের।
রোববার (৩১ মে) সন্ধ্যায় নেত্রকোনার দুর্গাপুরে সোমেশ্বরী নদীতে বাবার সঙ্গে লাকড়ি কুড়াতে গিয়ে পানিতে পড়ে নিখোঁজ হয় সাত বছরের শিশু শিহাব। লাকড়ি উঠানোর এক পর্যায়ে সে পানিতে পড়ে ডুবে যায়। এ সময় বাবার আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলেও শিহাবকে আর পাওয়া যায়নি।
স্থানীয়রা জানান, গত কয়েকদিনের বাঘমারা সীমান্তে ভারি বৃষ্টিপাতে সোমেশ্বরী নদীর পানি বেড়ে যায়। প্রবল স্রোতে পাহাড়ি ঢলে ভেসে যায় লাকড়ি। আর এ সব লাকড়ি কুড়াতে অন্যদের মতোও স্বপন নিজের শিশুপুত্রকে নিয়ে ডিঙ্গি নৌকা ভাসায় নদীতে। হঠাৎ শিশুটি পড়ে গেলে বাবার চিৎকার শুনে অনেকে নদীতে ঝাঁপ দেয়। কিন্তু কেউ খুঁজে পায় না। পরে ফায়ার সার্ভিসে খবর দিলে রাতে ময়মনসিংহ থেকে ডুবুরি দল এসে উদ্ধার কার্যক্রম চালায়। নদীর স্রোত বেশি থাকায় উদ্ধার কাজ পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি।
এদিকে সোমবার দুপুর পর্যন্ত প্রায় নিখোঁজের ২০ ঘণ্টা অতিবাহিত হতে চললো। তবুও সন্ধান পাওয়া গেল না।
দূর্গাপুর ফায়ার স্টেশনের ফায়ায় ওয়্যার অফিসার সাইফুল ইসলাম জানান, নদীর স্রোত তীব্র থাকায় উদ্ধার কাজ পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না। এখন মরদেহটি ভেসে ওঠা ছাড়া আর কোনো পথ নেই।
এদিকে পরিবারের সদস্যদের নিখোঁজের মরদেহটি পাওয়া নিয়েই এক ধরনের অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে বলেও জানান তারা।

2 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন