৩ ঘণ্টা আগের আপডেট রাত ১:৩৩ ; শুক্রবার ; ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
EN Download App
Youtube google+ twitter facebook
×

সাঁকো ভেঙে দিল আ’লীগ নেতা : দুর্ভোগে

বরিশালটাইমস রিপোর্ট
৫:৫৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৬

আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে বরিশালের উজিরপুরে আওয়ামী লীগের এক নেতা বাঁশের একটি সাঁকো ভেঙে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে চারটি গ্রাম যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। পাঁচটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ ১৫ হাজার মানুষ দুর্ভোগে পড়েছে। সাঁকো নির্মাণের দাবিতে গতকাল রোববার গ্রামবাসী বিক্ষোভ করেছে।

একাধিক স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার জল্লা ইউনিয়নের মুন্সীরতাল্লুক থেকে দক্ষিণ মুন্সীরতাল্লুক পর্যন্ত পাকা সড়কটি ৩০ বছরের একটি পুরোনো সড়ক। এই সড়কের একাংশে বায়তুল আমান জামে মসজিদ অবস্থিত। মসজিদের গোড়ায় ৬০ ফুট দীর্ঘ একটি বাঁশের সাঁকো রয়েছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও মসজিদ কমিটি গঠনের বিরোধকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ মুন্সিরতাল্লুক গ্রামের প্রভাবশালী আলমগীর সিকদারের সঙ্গে এলাকাবাসীর দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে।

মুন্সীরতাল্লুক গ্রামের প্রবীণ ফকরুদ্দিন হাওলাদারসহ আরও কয়েকজন বলেন, গত শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে মুন্সীরতাল্লুক বায়তুল আমান জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটি গঠনের জন্য সভা বসে। সভায় আলমগীর সিকদার নিজেকে সভাপতি ঘোষণা করলে উপস্থিত মুসল্লিরা এর বিরোধিতা করেন। এ নিয়ে মুসল্লিদের সঙ্গে আলমগীরের বাগ্বিত-া ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে কমিটি গঠন স্থগিত করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, মসজিদ কমিটি গঠন স্থগিত হওয়ার জের ধরে শুক্রবার বেলা তিনটার দিকে আলমগীর শিকদার তাঁর ছেলে সোহাগ সিকদার ও সোহেল সিকদারের নেতৃত্বে ২৫-৩০ জন মিলে সাঁকোটির মাঝের অংশ ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। এলাকাবাসী সাঁকো ভাঙতে বাধা দিলে আলমগীরের লোকজন হামলা চালিয়ে ১০ জনকে আহত করেন।

গত শনিবার সরেজমিনে দেখা যায়, আলমগীর সিকদারের বাড়ির পাশেই খালের ওপর সাঁকোটি নির্মাণ করা হয়েছে। সাঁকো ভেঙে ফেলার প্রতিবাদে এবং দোষী ব্যক্তিদের বিচারের দাবিতে গতকাল রোববার সকালে সাঁকোর গোড়ায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে এলাকাবাসী।

জল্লা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আলমগীর সিকদার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সাঁকো ভাঙা সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। শুনেছি আমার ছেলের সঙ্গে ঝগড়া হয়েছে।’

সোহাগ সিকদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পৈতৃক সম্পত্তির ওপর সাঁকোটি থাকায় আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। তাই সাঁকোটি ভেঙে দিয়েছি।’

জল্লা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ হালদার নান্টু বলেন, কারও ব্যক্তিগত জায়গায় সাঁকোটি নির্মিত হয়নি। এটি ভেঙে ফেলে চরম অন্যায় করা হয়েছে এবং হাজার হাজার মানুষকে দুর্ভোগে ফেলা হয়েছে।

খবর বিজ্ঞপ্তি, বরিশালের খবর

আপনার ত লিখুন :

 
ভারপ্রাপ্ত-সম্পাদকঃ শাকিব বিপ্লব
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮ | বরিশালটাইমস.কম
বরিশালটাইমস মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
ইসরাফিল ভিলা (তৃতীয় তলা), ফলপট্টি রোড, বরিশাল ৮২০০।
ফোন: +৮৮০২৪৭৮৮৩০৫৪৫, মোবাইল: ০১৮৭৬৮৩৪৭৫৪
ই-মেইল: barishaltimes@gmail.com, bslhasib@gmail.com
© কপিরাইট বরিশালটাইমস ২০১২-২০১৮
টপ
  বরিশাল হয়ে পায়রা বন্দর পর্যন্ত রেললাইন চালু হবে: রেলপথ মন্ত্রী  হিজলায় পুকুরের মাছ লুট  ঝালকাঠিতে সাধু আন্তনির তীর্থ উৎসবে ভাটিকানের রাষ্ট্রদূত  কুমিল্লাকে উড়িয়ে প্লে অফে বরিশাল, মাঠে নামার আগেই বিদায় খুলনার  বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত  পৌরসভা নির্বাচন: পটুয়াখালীতে প্রতীক বরাদ্দ, প্রার্থীদের প্রচারণা শুরু  বরগুনায় ২০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল বিনষ্ট  কৃত্রিম সংকটে বেড়েছে মুরগির দাম, কেজিতে ২০ টাকা  ৫০ বছর পর চাঁদে যুক্তরাষ্ট্র : প্রথম বাণিজ্যিক যানের অবতরণ  পর্যটকদের নতুন আকর্ষণ রাঙ্গাবালীর চর হেয়ার দ্বীপ