বার্তা পরিবেশক, অনলাইন :: কোটি টাকার সম্পত্তি লিখে নিয়ে ৭০ বছরের বৃদ্ধা মায়ের ভরণপোষণ বন্ধ করে দিল দুই সন্তান। শুধু তাই নয়, সন্তানদের কাছে খাবার চাওয়ায় মাথা ফাটিয়ে ওই বৃদ্ধাকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ।
এমন ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেছে নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলায়। নির্যাতিত সেই মায়ের নাম হোসনে আরা। মঙ্গলবার দুপুর ১ টায় উপজেলার ধামগড় ইউনিয়নের সেনেরবাড়ি এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে।

ছেলেদের হাতে রক্তাক্ত বৃদ্ধা হোসনে আরা গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, তার স্বামী মৃত সোনা মিয়া এলাকার প্রভাবশালী মেম্বার ছিলেন। জমিজমার অভাব ছিলো না। স্বামী জীবিতকালে স্ত্রী হোসনে আরার নামে যে সম্পত্তি লিখে দিয়ে গেছেন, তার মূল্য বর্তমানে কোটি টাকা। পৈত্রিক সম্পত্তি পাওয়ার পরও বৃদ্ধার নামে থাকা কোটি টাকার সম্পত্তি ২ সন্তান হাজী মঞ্জু মিয়া (স্থানীয় ৭নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি) ও মোফাজ্জল হোসেন জোরপূর্বক লিখে নেয়। সম্প্রতি ছেলেরা মায়ের ভরণপোষণ বন্ধ করে দেয়।
বৃদ্ধা হোসনে আরা আরও বলেন, মঙ্গলবার ছোট ছেলে মোফাজ্জলের কাছে খাবার চাইলে সে আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করতে থাকে। এক পর্যায়ে আমাকে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেয় এবং বাসা থেকে বের করে দেয়।

আর্তনাদ করে হোসনে আরা বলেন, খাবারের কষ্ট আর অভাবের তাড়নায় আমি স্থানীয় মেম্বারের কাছে ত্রাণ চাইতে গেলে মেম্বার আইয়ুব আলী ছেলেদের ডেকে ত্রাণের তালিকায় আমার নাম দিতে বললেও তারা দেয়নি। এখন আমি বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছি।
এ বিষয়ে স্থানীয় ৭নং ওয়ার্ড মেম্বার আইয়ুব আলী বলেন, বৃদ্ধা আমার কাছে এসেছিলো ত্রাণের জন্য। তখন তার ছেলেদের ঐ এলাকার ত্রাণ লিষ্টে ওনার নাম দিতে বলেছিলাম। ছেলেরা দেয়নি। তিনি আরও বলেন বৃদ্ধা মা’কে রক্তাক্ত জখম করার বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে এটা করে থাকলে খুবই নিন্দনীয় কাজ বলে মনে করি।

স্থানীয় কামতাল তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এ ধরনের কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেবো। তবে আমি খোঁজ নিচ্ছি।

এ বিষয়ে বৃদ্ধার ছেলে মোফাজ্জল হোসেনের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।