পুলিশ পরিচয়ে অটোরিকশাচালককে মারধরকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: কমিশনার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল >> বরিশাল নগরীতে পুলিশ পরিচয়ে এক অটোরিকশাচালককে মারধর করেছেন দুই ব্যক্তি। শহরের জিলস্কুল মোড়ে বৃহস্পতিবার অপরাহ্নে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাদাপোশাকের দুই ব্যক্তি নিজেদের বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সদস্য দাবি করাসহ মোহাম্মদ সেলিম নামের এক অটোরিকশাচালককে মারধর করে। এই চিত্র আপশাশের ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষ প্রত্যক্ষ করলেও ভয়ে কেউ প্রতিবাদে অগ্রসর হয়নি। মারধরকারী দুই ব্যক্তি পুলিশ কী না তা আপাতত পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান ইতিমধ্যে মিডিয়াকর্মীদের জানিয়ে দিয়েছেন, সেই দুই ব্যক্তি পুলিশ হলেও তাদের শনাক্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ‘রুপাতলী বাস টার্মিনাল থেকে যাত্রী নিয়ে সদর রোডের দিকে আসছিলেন অটোরিকশাচালক নগরীর এয়ারপোর্ট থানা এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ সেলিম। পথিমধ্যে জিলাস্কুলের মোড় পার হওয়ার প্রাক্কালে বিপরিত দিক থেকে আসা একটি মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগার উপক্রম তৈরি হয়। এতে মোটরসাইকেল থাকা দুইজন ক্ষিপ্ত হয়ে অটোরিকশার চাবি নিয়ে যাওয়াসহ চালককে মারধর এবং গালাগাল শুরু করে দেয়। এবং উভয়ে নিজেকে একাধিকবার পুলিশ পরিচয় দেয়। কিন্তু তাদের শরীরে পুলিশের পোশাক ছিল না। অটোরিকশাচালক তাদের দুইজনের কাছে হাতজোড় করে একাধিকবার ক্ষমা প্রার্থনা করলেও তারা গালিগালাসসহ মারধর করতে থাকে।

একপর্যায়ে আশপাশে লোকজন ছুটে এসে মারধরের কারণ এবং তাদের পরিচয় জানতে চাইলে দুজনেই পুলিশ পরিচয় দেয়াসহ মেট্রোপলিটনে কর্মরত বলে দাবি করে। অটোরিকশাচালক বলেন, ‘এই কারণে ভয়ে কেউ বিষয়টি প্রতিবাদ না করায় উভয়ে বীরদর্পে চলে যায়।

এই বিষয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে তাদের পরিচয় জানতে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মোকতার হোসেনের সাথে এক সংবাদকর্মী কথা বললে তিনি বিষয়টি সম্পর্কে অবগত নন বলে জানান। তবে খোঁজ নিয়ে দেখার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এদিকে মিডিয়াকর্মীদের কাছ থেকে ঘটনার বিষয় শুনে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান। শীর্ষ এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, যদি কোনো পুলিশ সদস্য এমনটি করে থাকে সেটি অপেশাদার আচরণ হয়েছে। এবং তারা যদি তার আওতাধীন টিমের সদস্য হয়, তাহলে অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

সেক্ষেত্রে সিসিটিভিতে ধারণ ভিডিও এবং ছবি পর্যালোচনা করেও দেখবেন, জানান মি. শাহাবুদ্দিন খান।’