পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি: ছায়া সুনিবিড় গ্রাম। সবুজ মাঠ। মাঠের পাশে সবুজ ধানের খেত। এক পাশে বয়ে গেছে আঁকাবাঁকা সরু নদী। দু পাশে ধান‌ ক্ষেত আর পাশে রয়েছে খাল। অপর দিকে নদীর ওপর দিয়ে উড়ে যাচ্ছে সাদা বক এবং জেলেদের নৌকার পাল। গ্রামের অপরূপ প্রকৃতি এমনভাবেই পেন্সিল ও রং তুলির আচড়ে ফুঁটিয়ে তুলেছে তৃতীয় শ্রেনীর ছাত্রী নুসরাত জাহান নিসা, শুধু নিসাই নয় অন্তত অর্ধশত কচিকাঁচা শিক্ষার্থীরা রং তুলির মাধ্যমে সবুজ পৃথিবী চেয়েছে।

সোমবার (২২ এপ্রিল) বিশ্ব ধরিত্রী দিবস উপলক্ষে শিশুর চোখে আগামীর সবুজ পৃথিবী চিত্রাঙ্কন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে প্রকৃতির নানা রূপ ফুটিয়ে তোলে রং তুলিতে। পাথরঘাটা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান নিসা, মধুমতি আইডিয়াল স্কুলের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল মুহিত, আরিশা মুসারাত, সারা ইয়াসমিন, ঈমান, অর্ঘ্য জ্যোতি বড়াল, নুসরাত জাহান হিমু, নিলাদ্রী হালদার, মাধু চৌধুরী দোলা, দিব্য রাজ বালাসহ। অর্ধশত শিক্ষার্থীরা রং তুলির মাধ্যমে তুলে ধরে আগামীর বাসযোগ্য সবুজ পৃথিবী।

‘আমরা বসবাসযোগ্য সবুজ পৃথিবী চাই, পৃথিবী বাঁচাতে না পারলে আমাদের রক্ষা নাই’ প্লাস্টিক দূষণ বন্ধ করি, ধরিত্রী রক্ষা করি’সহ নানা স্লোগান নিয়ে এবং “প্লানেট বনাম প্লাস্টিক” প্রতিপাদ্য নিয়ে বরগুনার পাথরঘাটায় বিশ্ব দিবস পালন করা হয়। ধরিত্রী রক্ষায় আমরা ‘ধরা’, ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ ও পাথরঘাটা উপকূল সুরক্ষা আন্দোলন এ আয়োজন করেন।

এর আগে পাথরঘাটা পৌর শহরের প্রান রিজার্ভ পুকুরের পাড়ে প্লাস্টিক বর্জ্য অপসারণ করেন পাথরঘাটা উপকূল সুরক্ষা আন্দোলন ও রুপান্তর-আস্থা প্রকল্পের অর্ধশত জলবায়ু যোদ্ধা। পরে পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদের হলরুমে জলবায়ু পরিবর্তন, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা, প্লাস্টিক বর্জ্য অপসারণসহ নানা বিষয় আলোচনা করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. রোকনুজ্জামান খান, পাথরঘাটা প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী, পাথরঘাটা পৌরসভার কাউন্সিলর চামেলি আক্তার, উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক ও গবেষক শফিকুল ইসলাম খোকন প্রমুখ।

রোকনুজ্জামান খান বলেন, শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে যে প্রতিভা আছে সেটা আজ প্রকাশ পেয়েছে। শিশু থেকেই পরিবেশের প্রতি গুরুত্ব এবং জ্ঞান নেয়া উচিত। শিশুর মাথায় ঢুকাতে হবে গাছ পালা আমাদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। পরিবেশগত সমস্যা সম্পর্কে মানুষের সচেতনতা বাড়াতে এবং বিশ্বের প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় শিশুদের সচেতনতা বাড়াতে হবে।

শফিকুল ইসলাম খোকন বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব এখন আর কাগজ কলমে নেই, এখন আমরা বাস্তবে ক্ষতি দেখতে পারছি। পৃথিবী আজ অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে যা আমাদের কারনেই। পৃথিবী রক্ষায় আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। তিনি আরও বলেন, আজকের শিশু আগামীর ভবিষ্যৎ’, আজকের যদি শিশুদের পরিবেশের প্রতি গুরুত্ব বা পরিবেশের লাভ ক্ষতি বুঝানো হয় তাহলে আগামীতে পৃথিবী ভালো দেখতে পাবো।