নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: বরিশাল জেলা পরিষদের ৯৯ বছর লিজ দেওয়া পেট্রোল বিক্রির (‘লুনা এন্টারপ্রাইজ)নামক দোকানে মালিকানা দাবি করে ও প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তালা দেওয়ার অভিযোগ তুলে কোতয়ালী থানায় জিডি দায়ের করা হয়েছে। প্রতিকার চেয়ে, জেলা পরিষদ ও থানার দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছে এক অন্তঃসত্ত্বা নারী লিমা।

গত (১৮ এপ্রিল) সকাল দশটার সময় ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটায় প্রতিকার না পেয়ে (গত২০ এপ্রিল) কোতয়ালী মডেল থানায় একটি জিডি নং ১২১৭ দায়ের করেন। জিডি সূত্রে জানা যায়, ১০নং ওয়ার্ডস্থ স্টীমারঘাট বিআরটিসি কাউন্টার সংলগ্ন আমার বাবার পৈত্রিক সূত্রে জেলা পরিষদের লিজ সম্পত্তিতে ‘মেসার্স লুনা এন্টারপ্রাইজ’ নামীয় দোকান আছে।

বিবাদীরা অবৈধভাবে ‘মেসার্স লুনা এন্টারপ্রাইজ নামীয় দোকানের মালিক দাবী করে এবং বিভিন্ন তারিখ ও সময় দোকানের সামনে আসিয়া বিভিন্ন ধরনের ভয়তীতি প্রদর্শন করে। গত(১৮ এপ্রিল) সকাল অনুমান ১০:৩০ ঘটিকার সময় কোতয়ালী মডেল থানাধীন ১০নং ওয়ার্ডস্থ টীমারঘাট বিআরটিসি কাউন্টার সংলগ্ন ‘মেসার্স লুনা এন্টারপ্রাইজ’ দোকানের সামনে মোঃ মোসলেহ উদ্দিন মানিক (৪১), পিতা-মোঃ ইসমাইল, মোঃ শাহীন (৫১), পিতা-মোখলেহ উদ্দিন হাওলাদার, মোঃ আরাফাত সিকদার (৪১), পিতা-বরকত,বিবাদীরা আসিয়া আমাকে ও আমার দোকানের কর্মচারীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।

আমি বিবাদীদের পালিগালাজ করিতে মানা করিলে বিবাদীরা আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি ও প্রাননাশের হুমকি প্রদান করে। উক্ত বিবাদীরা যে কোন সময় আমার ও আমার দোকানের কর্মচারীর ক্ষতি করিতে পারে। এবিষয়ে কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এটিএম আরিচুল হক বলেন, ঘটনার দিন আমি ছুটি নিয়ে বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশ্য রওয়ানা হই।

এসময় শুনি বান্দ রোড এলাকার জেলা পরিষদের স্টল নিয়ে ঝামেলা চলে। আমি দু’পক্ষেকে আইন হাতে তুলে না নেয় এবং জেলা পরিষদ বা স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করার জন্য বলি। কিন্তু তাদের দোকানে তালা দেওয়ার ঘটনায় চাবি জমা দিছিলো, আমি চাবি জমা রাখিনি।