দিনভর ঝড়ো-বাতাস ও তুমুল বৃষ্টিতে সারাদেশের মতো বরিশালেও জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। রাস্তা-ঘাট ডুবে বাসা-বাড়ি,দোকানপাটে পানি ঢুকে যায়। বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকায় পানি সরবরাহেও ব্যাঘাত ঘটে।

বরিশাল আবহাওয়া অফিসের উচ্চতর-পর্যবেক্ষক বেলাল হোসেন জানান, রবিবার ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বরিশালে ২৭২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। এছাড়া বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৩৫ কিলোমিটার।

ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো) বরিশাল ডিভিশন-১ ও ২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আমজাদ হোসেন ও তরিকুল ইসলাম জানান, ব্যাপক বৃষ্টিপাতে গ্রিড ও সাব-স্টেশনগুলোতে পানি ঢুকে পড়ায় বিপদ এড়াতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখতে হয়। বৃষ্টি থামলে ফায়ার সার্ভিসের সাহায্যে পানি নিষ্কাশনের পর সন্ধ্যা থেকে পর্যায়ক্রমে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হয়।

দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে বরিশালের অভ্যন্তরীণ রুটে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটিএ।

রবিবার বেলা সাড়ে ১২টা থেকে নদী বন্দরে ২নং সতর্কতা সংকেত জারি করার পরপরই বরিশাল লঞ্চ ঘাট থেকে অভ্যন্তরীণ ১৭ রুটের সকল নৌযান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

বরিশাল নদী বন্দরের কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারনে বরিশাল থেকে অভ্যন্তরীণ সকল রুটের নৌযান চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে।